ডেস্ক: ফের মেডিকেল কলেজের ছায়া কলকাতার সরকারি হাসপাতালে। শিয়ালদহের ইএসআই হাসপাতালের ফার্মাসি বিভাগেই আগুন লাগে প্রথম। এরপর সেখান থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। ফলে নিমেষের মধ্যে রোগীর পরিবার পরিজনদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। বৃহস্পতিবার রাতেই এই ঘটনাটি ঘটে। হঠাৎ করে কালো ধোঁয়া বেরোতে দেখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দমকল বিভাগকে খবর দেয়। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে আগুন নেভানোর কাজে হাজির হয় দমকলের তিনটি ইঞ্জিন। এরপর দমকল কর্মীদের তৎপরতায় আগুন আধ ঘণ্টার কিছু সময় পরে আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। তবে এই ঘটনায় কোনও রকম হতাহতের খবর না থাকলেও রোগীদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছিল। তবে শিয়ালদহের ইএসআই হাসপাতালের ফার্মাসি বিভাগে ঠিক কীভাবে আগুন লাগল সেই বিষয়ে এখনও বিশদ তথ্য পাওয়া যায়নি।

তবে আগুন সম্পূর্ণ নেভানোর পরও ওই ফার্মাসির মধ্যে কাউকে ঢুকতে হচ্ছে না। তবে এইই আগুন লাগার কারণে হাসপাতালে ওষুধের কিছুটা টান পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। ত্তবে ওখানে কোনও রকম দাহ্যবস্তু ছিল কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে ফার্মাসি বিভাগে আগুন লাগায় বিভিন্ন কেমিক্যালের সাহায্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ার একটা আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু দমকলের তৎপরতায় সমস্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণেই থাকে৷ আগুন লাগলে রোগীর পরিবারের লোকদের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়৷ তবে এই দুর্ঘটনা কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের মতো বড় আকার ধারণ করেনি। এমনকী, কোনও রোগীকে কেবিনের বাইরেও নিয়ে আসতে হয়নি। কেবল আতঙ্কই ছড়ায়। ফার্মাসিতে এই আগুনের ফলে ওষুধের আকাল পড়ার একটা সম্ভাবনা থাকছে বলেই জানাচ্ছেন অনেক রোগীর বাড়ির সদস্যরা। ফলে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে তাঁদের কপালে। হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সুপার অনন্ত বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, কিছু ওষুধ নষ্ট হয়ে গেছে। তবে এর প্রভাব কী হতে পারে সেই বিষয়ে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানতে পারেনি পুলিশ ও দমকল। তবে চলছে তদন্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here