news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রতিশোধ বোধহয় একেই বলে। একের পর এক প্রলয়ংকারী ঝড়, বিশ্বজোড়া মারণ মহামারী করোনা, প্রবল দাবদাহে তপ্ত ধরিত্রী। এরই মাঝে উত্তরাখণ্ডের বিস্তীর্ণ বনভূমিতে শুরু হল প্রকৃতির রুদ্রলীলা। ভয়ঙ্কর দাবানলে পুড়ে ছাই হয়ে গেল উত্তরাখণ্ডের বিস্তির্ণ বনভূমি। আগুনের করালগ্রাসে পুড়ে মরছে শতশত বন্যপ্রাণ। চারদিন ধরে চলছে তান্ডব। থামার লক্ষণ নেই কোনোভাবেই। জানা যাচ্ছে দাবানলের জেরে এখনো পর্যন্ত আনুমানিক ৭১ হেক্টর জমি পুড়ে ছাই হয়েছে ইতিমধ্যেই। ১.৩২ লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বনদপ্তরের।

জানা গেছে গত কয়েকদিন ধরেই উত্তরাখান্ড সহ উত্তর ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ব্যাপকভাবে বেড়েছে দাবদাহে। জারজের এই দাবানলের শিকার হয়েছে উত্তরাখণ্ডের বিস্তীর্ণ বনভূমি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কুমায়ূনে। এছাড়াও নৈনিতাল, আলমোরা, পউরি গাড়ওয়াল, দেরাদুন এবং তেহরির মত অঞ্চলগুলি থেকে এসেছে দাবানলের খবর। পরিস্থিতি মোকাবিলায় কোমর বেঁধে নেমেছে বনদপ্তর তবে কোনভাবেই সামাল দেওয়া যাচ্ছে না ওই ব্যাপক আগুনকে। তাপমাত্রা সঙ্গে সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বাড়িয়ে দিচ্ছে আগুনের তেজ। এই ঘটনায় রীতিমতো সংকটের মুখে এই এলাকার জীব-বৈচিত্র ও একাধিক বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণ। পাশাপাশি পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে বহু দুর্লভ গাছ। এখনো পর্যন্ত এই দাবানলের জেরে মৃত্যু হয়েছে দুই জনের, একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

জানা যাচ্ছে, গত ২৩ মে উত্তরাখণ্ডের শ্রীনগর জেলায় প্রথম শুরু হয় দাবানল তারপর থেকে ছড়িয়ে পড়তে থাকে ক্রমশ। উত্তরাখণ্ডের প্রায় ৩৪ হাজার স্কোয়ার কিলোমিটার জুড়ে রয়েছে বিস্তীর্ণ জঙ্গল। গতবছরও দাবানলের শিকার হয়েছিল এই রাজ্য। সেবার শুধুমাত্র কুমায়ুনে পুড়ে ছাই হয়েছিল ১২০০ হেক্টর অরণ্য। গত ২৫ মে পর্যন্ত উত্তরাখণ্ডে মোট ১৫৯০টি দাবানলের ঘটনা ঘটেছে বলে জানাচ্ছে নথিপত্র। যদিও সরকারের তরফে দাবি করা হয়েছে আগের তুলনায় বর্তমানে অনেকটাই কমে গিয়েছে দাবানলের সংখ্যা। তবে এইবার যেভাবে দাবানল দাপট দেখাতে শুরু করেছে তাতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বন কর্তারাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here