firhad hakim

নিজস্ব প্রতিনিধি: দুটো দল এক পায়ে হাঁটছিল, স্ক্র্যাচ নিয়ে আর একটা দল এল। ব্রিগেডে বাম, কংগ্রেস ও ইন্ডিয়া সেকুলার ফ্রন্টের জোট নিয়ে মন্তব্য করলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম। তিনি এই জোট নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। এই জোট কতটা দীর্ঘস্থায়ী হবে সেই নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। ব্রিগেড প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘পাগলে কি না বলে, ছাগলে কি না খায়।’

রবিবার ব্রিগেড শেষের কয়েক ঘণ্টা পর সাংবাদিকদের একটি অনুষ্ঠানে ফিরহাদ হাকিম বলেন, ব্রিগেডে যা বক্তব্য রাখা হয়েছে, তা রাজনৈতিক বক্তব্য। নির্বাচনের আগে বিরোধীরা কখনও বলেন না রাজ্য সুষ্ঠভাবে পরিচালনা হচ্ছে। আব্বাস সিদ্দিকি নিয়ে সরাসরি কোনও মন্তব্য করেননি। এই জোট আদৌ কতটা সফল হবে সেই নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ব্রিগেডের মঞ্চে যখন অধীর চৌধুরী এসে উপস্থিত হন, কেউ উঠে দাঁড়াননি। কিন্তু আব্বাস সিদ্দিকি আসার পরেই সবাই উঠে দাঁড়ান। তিনি বলেন, ‘যাঁরা আজকে ব্রিগেড করলেন, তাঁদের আমলে আমলাশোলে মানুষ অনাহারে মারা যেতেন। আমি দেখিছি, তাঁদের আমলে ২১ জুলাই গুলি করে মারা হয়েছে এসপ্ল্যানেডে। বিভিন্ন জায়গায় বামপন্থীদের হাতে হাজারো হাজারো কংগ্রেস কর্মী মারা গিয়েছেন। এখন তাঁরা হাত মিলিয়ে অনেক কিছু বলছেন।’ তিনি মনে করেন, বাংলার মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশ্বাস করেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন বলে তাঁর বিশ্বাস।

তিনি বলেন, ‘বামেদের কিছু মানুষ খুব গুরুত্ব দিয়ে সভা করেন। কর্মী আলাদা আর মানুষের ভরসা আলাদা। ১৯৯৩ সালে আমরা যা ব্রিগেড করেছিলাম, তাতে তো পরের দিন ক্ষমতায় আসার কথা ছিল। কিন্তু আমরা ক্ষমতায় এসেছি তৃণমূল কংগ্রেস করার পরে, মানুষের বিশ্বাস অর্জনের পরে। আগে বলা হতো, সিপিএমের ‘বি-টিম’ কংগ্রেস। এখন সিপিএমের ‘এ-টিম’ কংগ্রেস হয়ে গেছে। বাম-কংগ্রেসের জোট আব্বাস সিদ্দিকির জন্য কখন ধাক্কা খাবেন কেউ জানেন না। কংগ্রেসের নিজের নেতারাই বলছেন, তাঁদের দল জম্মুতে দূর্বল হয়ে পড়েছে। মোদিকে সরানোর উদ্যোগ নেই কংগ্রেসের।’ মোদিকে একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরাতে পারেন বলে তিনি মনে করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here