নিজস্ব প্রতিবেদক, বীরভূম: লোকসভা নির্বাচনের সময় যত এগিয়ে আসছে, নিজেদের আক্রমণের ধার ততই বাড়িয়ে চলেছে শাসক ও বিরোধী দুপক্ষই। সেই লক্ষ্যেই এদিন বীরভূমের মাটিতে দাঁড়িয়ে বিজেপিকে সিপিএমের সঙ্গে তুলনা করে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের পূর্ত ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। শুক্রবার নানুরে তৃণমূলের এক সভায় দাঁড়িয়ে বিজেপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘বিজেপি হল নতুন বোতলে পুরনো মদ’।

শুক্রবার নানুরের বাসাপাড়ায় ২০০০ সালের ২৭ জুলাই  সুচপুরে নিহত ১১জন সংখ্যালঘু তৃনমূল কংগ্রেস সমর্থকের স্মৃতিতে আয়োজিত নানুর দিবসে উপস্থিত ছিলেন ফিরহাদ হাকিম। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আজ এই বাংলায় সিপিএম নেই। কিন্তু তাদের হার্মাদরা আছে। এখন সেই সব সিপিএমের হার্মাদরা বিজেপিতে আশ্রয় নিয়েছে। যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে জব্দ করা যায়। বিজেপির নতুন বোতলে সিপিএমের পুরনো মদ। কিন্তু বাংলার মানুষ বলেছে বিজেপির বোতলে সিপিএমের মদের লোভে তারা আর পড়ছে না। তারা উন্নয়নের বাংলার সাথী হয়েই থাকবে।’

এদিনের ভাষণে তিনি অভিযোগ করেন, ‘কিছু কিছু লোক নতুন কিছুতে চুমুক দিতে ভালোবাসে। কিছু কিছু জায়গায় অশান্তি করার চেষ্টা চলেছে। এইসব লোকজন জানে না বিজেপি ঝাড়খণ্ড থেকে লোক পাঠিয়েছে, ক্রিমিনাল পাঠিয়েছে, মাওবাদীদের একটা অংশকে পাঠিয়ে অশান্তি সৃষ্টি করছে। বাংলাকে উত্তপ্ত করে বাংলাকে ডিসট্রাব করতে হবে, বিজেপি এই পলিশি নিয়েছে। তবে বিজেপির এই চক্রান্ত বাংলায় সফল হবে না। বাংলা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলা। বিজেপি ভুলে গেছে যে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের সময় এই বাংলার প্রতিটি প্রান্তে যে দুজন মহিলা একতায় সম্প্রীতির বার্তা নিয়ে গেছেন তারা মাদার টেরেজা আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই এই বাংলায় বিজেপির তাণ্ডব রুখে দেব আমরা।’ সম্প্রতি, মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীরও সফরকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, ‘সাড়ে চার বছর ধরে নোটবন্দী, জিএসটি এই সব করে মানুষের নাভিশ্বাস তুলে এখন তিনি কৃষক দরদী হয়ে গেছেন। ভাঁওতা দিয়ে মানুষকে আবার বোকা বানাবার চক্রান্ত চলছে। আশা করেছিলাম কৃষকদের জমায়েতে বড় কোন ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু তিনি কি বললেন? বললেন এই রাজ্যে নাকি সিন্ডিকেট চলেছে। না মোদী বাবু, এখানে সিন্ডিকেট চলছে না। সে সব চলছে গুজরাট, রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশের মত জায়গায় যেখানে আপনারা সিন্ডিকেট করে মানুষ খুন করছেন।’

তবে শুধু ফিরহাদ নয়, বিজেপিকে আক্রমণ করতে বিন্দুমাত্র খামতি রাখেননি বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলও। এদিন জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, ‘গোরক্ষার নামে রাজ্য রাজ্যে মানুষ খুন করছে বিজেপি। বিজেপি আর তাদের আরএসএস হিন্দুদের তাতাছে। আমরা এইসব মেনে নেব না। আমরা ওদের থেকেও বড় যাদুকর। মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে। সেই মানুষদের সঙ্গে নিয়েই ২০১৯-এ লোকসভায় যোগ্য জবাব দেব। মানুষ মমতাকে বিশ্বাস করে বিজেপিকে নয়। তাই শুধু এই রাজ্যের মানুষ নয়, দেশের মানুষ আজ তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দেখতে চাইছে।’ ফিরহাদ হাকিম অনুব্রত মণ্ডল ছাড়াও এদিনের সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, রাজ্যের অপর দুই মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ, আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায়, জেলা পরিষদের সভাধিপতি বিকাশ রায় চৌধুরী সহ দলের জেলা নেতৃত্বরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here