কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী উবাচ: মার্চে বিক্রি এয়ার ইন্ডিয়া, ভারত পেট্রোলিয়াম

0
kolkat bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক:  সরকার আর এয়ার ইন্ডিয়া ও ভারত পেট্রোলিয়ামের ভার বইবে না বলে শনিবার সাফ জানান কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ৷ বাস্তবের দিকে তাকিয়েই এমন সিদ্ধান্ত বলে দাবি করেন তিনি৷ তাঁর কথায়, বিলগ্নিকরণের পথে আরও এক পদক্ষেপ করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তালিকায় আগেই ছিল এয়ার ইন্ডিয়া, এবার এই তালিকায় যোগ হল ভারত পেট্রোলিয়ামের নাম।একটি ইংরেজি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমরা এ নিয়ে এগোচ্ছি, আশা করছি এই অর্থবর্ষের মধ্যেই কাজ সম্পূর্ণ করতে পারব।’ রাষ্ট্রাযত্ত সংস্থা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পরিকল্পনার কথা জানতে চাওয়া হলে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ জানান, চলতি অর্থবর্ষে সরকার এই প্রতিষ্ঠানগুলি থেকে এক লক্ষ কোটি টাকা তুলতে চায়।

সরকারের কোষাগারের অবস্থা শোচনীয়৷অর্থনীতি গতি পাচ্ছে না৷ এমতাবস্থায় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের স্পষ্ট কথা দেশের স্বার্তে সরকারকে অনেক অপ্রিয় পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে৷ সেই সঙ্গে তাঁর দাবি,এয়ার ইন্ডিয়া নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিপুল উৎসাহ দেখেছেন। আন্তর্জাতিক রোড-শোতেও এ নিয়ে উৎসাহ দেখেছেন। যদিও ক্রমাগত লোকসানে চলা এই সংস্থা বিক্রি করতে গিয়ে ধাক্কা খেয়েছে সরকার। এখন কোষাগারের অবস্থা শোচনীয়। এই অবস্থায় সরকার চাইছে অর্থের সংস্থান করতে।তাঁর দাবি, দেশ বিদেশি বিনিয়োগ বিপুল পরিমানে আসছে৷ আর তার জন্য যা যা করণীয় তাই করবে কেন্দ্র বেলও সাফ জানিয়ে দেন তিনি৷

জিএসটি সংগ্রহ যে আশানুরূপ হচ্ছে না, সে কথাও বলেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী, তবে যে সব জায়গায় ফাঁকফোকর রয়েছে সেগুলি মেরামত করে ফেলায় সংগ্রহ আবার বাড়বে বলে মনে করছেন তিনি। এসার স্টিল নিয়ে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের প্রভাব আগামী ত্রৈমাসিকেই ব্যাঙ্কগুলির ব্যালান্সশিটে পড়বে বলেই তিনি মনে করেন। এর ফলে দেউলিয়া আইনের ভিত আরও মজবুত হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। ভোগ্যপণ্যের ক্ষেত্রে উপভোক্তাদের মানসিকতা বদলাচ্ছে বলে মনে করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। উৎসবের মরসুমে ব্যাঙ্কে ণের চাহিদা ১.৮ লক্ষ কোটি টাকা ছিল বলে তিনি জানিয়েছেন। ঘুরিয়ে তিনি প্রশ্ন করেন,‘যদি ক্রেতাদের আগ্রহ না বেড়ে থাকে তা হলে তা হলে ব্যাঙ্কের মাত্র দু’টি প্রোগ্রামের মাধ্যমে এত টাকা ঋণ দিতে পারে?’ বিজেপিপন্থী অর্থনীতিবিদদের একাংশ অবশ্য মনে করছেন, বিশ্ববাজারেই এখন অর্থনীতির শ্লথগতি চলছে। সেই তুলনায় ভারতের অবস্থায় ভাল। তবে বাস্তব ঠিক উল্টো কথা বলছে৷ সম্প্রতি জাতীয় এনএসও রিপোর্টে ভারতের ভয়াবহ অর্থনৈতিক অবস্থার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে৷ যা সরকার নাকচ করে দিয়েছে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here