mukul roy
mukul roy

ডেস্ক: পঞ্চায়েত ভোট যত এগিয়ে আসছে রাজ্য বিজেপিতে মুকুল রায়ের ভূমিকা যেন ততই ফিকে হয়ে হয়ে আসছে। দলে যোগ দেওয়ার পর থেকেই যেমন দাবিটা তিনি করেছে এসেছিলেন, কাজে ছিটেফোঁটাও তা দেখতে পাওয়া যায়নি। তৃণমূলের রাঘব বোয়াল নেতা তো দূর, উলটে বিজেপি থেকে কর্ণেল দীপ্তাংশু চৌধুরীর মতো হেভিওয়েট বুদ্ধিজীবী নেতা তৃণমূলে এসেছেন। ইতিমধ্যেই মুকুলের রক্তচাপ বাড়িয়েছেন আরেক বিজেপি নেত্রী শিখা চট্টোপাধ্যায়। বেশ কিছু সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তৃণমূলত্যাগী শিখা নাকি ফের শাসকদলে ফিরতে চলেছেন।

যদিও মুকুলের বানী শুনে শিখার বিষয়ে তিনি যে আত্মবিশ্বাসী তা মনে হওয়াই স্বাভাবিক। শিখাদেবীর ফের ঘরে ফেরার বিষয়ে তাঁকে জানতে চাওয়া হলে মুকুল বলেন, ‘শিখা তো রাজনীতির পরিণত নেত্রী। দেখাই যাক কী করেন তিনি। হয়তো দেখবেন উল্টোটা হল। তৃণমূলের রঞ্জন শীলশর্মা বিজেপিতে চলে এলে অবাক হবেন না যেন।’ মুকুলকে এই বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী শোনালেও তৃণমূলের অন্দরে খবর ইতিমধ্যেই শিখার মানভঞ্জনের পালা শুরু হয়ে গিয়েছে। এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে খোদ রঞ্জন শীলশর্মাকে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে শিলিগুড়ি সফরে সফরে গিয়েছেন মুকুল রায়। গতবার মুকুলের উত্তরবঙ্গ সফরের সময়ই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেন তিনি। উল্লেখ্য, নোয়াপাড়া বিধানসভা উপনির্বাচনের সময় মুকুলের নেতৃত্বে বিজেপি প্রার্থী হিসাবে দিল্লিতে ঘোষণা করে দেওয়া হয় মঞ্জু বসুর নাম। এরপর কী হয়েছিল তা সকলেরই জানা। তালিকা এখানেই শেষ নয়। পশ্চিম মেদিনীপুর ডেবরার প্রাক্তন বিধায়ক রাধাকান্ত মাইতির ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছিল। মুকুল ঘনিষ্ঠ রাধাকান্তবাবু বিজেপিতে যোগ দেওয়ার তিন মাস ঘুরতে না ঘুরতেই তৃণমূলে ফিরেছিলেন। ফলে পরিসংখ্যান বলছে, মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দিয়ে তৃণমূলের যেসব ছোট মাপের নেতামন্ত্রীদের কাছে টেনেছিলেন, তারা সবাই ফের নিজেদের দলে ফিরে আসতেই উদ্যোগী হচ্ছেন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here