china man with bee

মহানগর ডেস্ক: ‘মৌ বনে আজ মৌ জমেছে’ এত সঙ্গীতে। কিন্তু এ কীরে সম্ভব। শরীরে সাড়ে চার লক্ষ মৌমাছি নিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি। একটি মাত্র মৌমাছি হুল ফোটালেই তাতেই প্রাণ যাওয়ার জোগাড়। কিন্তু হুল ফোটানো তো দূর অস্ত সাড়ে চার লক্ষ মৌমাছিও তাদের বাসা হিসাবে বেছে নিয়েছে তাঁর সুঠাম শরীরকেই।

bee man 2

ঘটনা শুনতে অবাক লাগলেও একেবারে সত্যি। এ ঘটনা চিনের চংকিং শহরের। ওই শহরেই বাসিন্দা পেশায় মৌ চাষি পিং। বছর ৪১-এর ওই ব্যক্তি দীর্ঘ দিন ধরেই মৌমাছি চাষ করে খাঁটি মধুর ব্যবসা করেন।

জানা গিয়েছে, চিনের বাসিন্দা পিং ৩৪ বছর বয়সে প্রথম রেকর্ড গড়েন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে এই জাদুকরী কর্মকাণ্ড দেখিয়ে আসছেন। তিনি নগ্ন শরীরে মধু মেখে দাঁড়িয়ে থাকেন। মধুর আকর্ষণে ঝাঁকে ঝাঁকে মৌমাছি তার শরীরে বসে মধু খেতে থাকে। অথচ পিং দিব্যি দাঁড়িয়ে থাকেন জীবন্ত মৌচাক হয়ে।

কীভাবে তার শরীরে এতো মৌমাছি বসে তা জানাতে গিয়ে পিং বলেন, ‘এর জন্য শরীরকে আগে থেকেই প্রস্তুত করতে হয়। আমি শরীরে কোনও প্রকার সাবান ব্যবহার করি না। এ কারণে মৌমাছিরা আমার শরীরে আকর্ষণবোধ করে।’  তবে প্রতিবার স্টান্ট বসাতে প্রায় পনেরো মিনিট শ্বাস বন্ধ রাখতে হয় পিংকে। তাতেও তাঁর কোনও অসুবিধা হয়না। কারণ স্টান্ট বসানো তাঁর অভ্যাসে পরিণত হয়েছে।

আসলে মধু উৎপাদনে সারা বিশ্বে প্রায় প্রথম সারিতে রয়েছে চিন। প্রতি বছর চিন থেকেই গোটা পৃথিবীতে মধু রপ্তানি হয় ব্যপক হারে। কিন্তু ভেজালের ভয় আর ব্যবসা নষ্টের কথা মাথায় রেখে নিজের শরীরকেই খাঁটি মধু উৎপাদনের কারখানা বানিয়ে ফেলেছেন পিং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here