ডেস্ক: স্বপ্ন পূরণ হল না বেলজিয়ামের, স্ট্যালিনের দুর্গে চলছে ফরাসি বিপ্লব। শেষ চারের লড়াইয়ে প্রতিবেশীকে ১-০ গোলে হারিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে চলে গেল ফ্রান্স।

সেন্ট পিটার্সবর্গে প্ৰথম সেমি ফাইনালে উমতিটির কত একমাত্র গোলে দ্বিতীয়বারের জন্য ফাইনালের টিকিট পেয়ে গেল দিদিয়ের দেশমের দল। যদিও এডেন হ্যাজার্ড-ডে ব্রুইনরা ভালো সুযোগ তৈরি করলেও হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হল তাঁদের। বলের দখল আর আক্রমণে অসংখ্য সুযোগ তৈরি হলেও দিনটা আজ সঙ্গ দিলো না রবার্তো মার্টিনেজের শিষ্যদের। বরং, খেলার প্ৰতিকূলে থেকে মস্তিষ্ক দিয়ে ফাইনালের টিকিট দখল করে নিল ফরাসিরা। দেশমের কৌশলি ছিল, ঘর সামলে আক্রমণে যাওয়া। কাউন্টার অ্যাটাক-এ প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা। অন্তত ফ্রান্সের ৪-২-৩-১ ফর্মশন সেই কথাই বলছে।

প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকার পর খোলস ছেড়ে বেরোয় দেশমের ছেলেরা। আগের ম্যাচগুলোর সেই চর্চিত গতির ঝলকানি দেখা গেল দ্বিতীয়ার্ধে। এমবাপে-পোগবা-গ্রিজমানের ক্ষিপ্রতাই ৫১ মিনিটে স্যামুয়েল উমতিটির হেডে জয় এনে দিল জিদানের দেশকে। পিছিয়ে পড়ার পরই আরও আক্রমণাত্মক হয় ওঠে মার্টিনেজের দল। হ্যাজার্ড-লুকাকুরা আপ্রান চেষ্টা করেও ফরাসি রক্ষণ ভাঙতে পারেননি। সুযোগ তৈরি হলেও ফিনিশারের অভাব বড়ই প্রকট ছিল এদিন। লোকাকু নিজের সুনামের প্রতি সুবিচার করতে পারলে ম্যাচের ফলাফল অন্যরকম হতেই পারতো।

১৯৮৬ বিশ্বকাপের মতো হয়তো ফের একবার শেষচআরের লড়াই থেকে বিদায় নিতে হতো না বেলজিয়ামকে। অন্যদিকে, দু’দশক পর ফের বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স। সেবার ব্রাজিলকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্ব জয়ের স্বাদ পেয়েছিল ফরাসিরা। এবার কি তার পুনরাবৃত্তি? সামনে আর মাত্র একটা লড়াই! ইংল্যান্ড-ক্রোয়েশিয়ার মধ্যে বিজয়ী দলের মুখোমুখি হবে জিদানের দেশ! তবে ট্রফিতে চুম্বন করা করবে, তা জানার জন্য ১৫ জুলাই পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here