নিজস্ব প্রতিবেদক, বিষ্ণুপুর: ফুচকা খেতে গিয়েছিলেন। কিন্তু আর বাড়ি ফিরলেন না। ফুচকা বিক্রেতার ছুরির কোপেই মৃত্যু হল যুবকের। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুরে। পুলিশ জানায়, মৃতের নাম সুজয় পাসোয়ান(৩২)। বিষ্ণুপুরের কুড়চিবন এলাকার বাসিন্দা সুজয়ের গলায় ফুচকা বিক্রেতা মধুসূদন মাজি ছুরির কোপ বসিয়েছে বলে অভিযোগ।  মধুসূদনকে গ্রেফতার করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় বিষ্ণুপুরের দলমাদল রোডের ফুচকা বিক্রেতা মধুসূদন মাজির কাছে ফুচকা খেতে গিয়েছিলেন সুজয়। ফুচকা খাওয়ার আগে কোনও একটি বিষয় নিয়ে মধুসূদনের সঙ্গে সুজয়ের বচসা বাধে। ওই বচসা থেকে দু’জনের মধ্যে ধস্তাধস্তি এবং হাতাহাতিও শুরু হয়। সেই সময়ই মধুসূদন পিঁয়াজ কাটার ছুরি দিয়ে সুজয়ের গলায় কোপ মারে বলে অভিযোগ। মধুসূদনের ছুরির একটা কোপেই রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন সুজয়। তারপর স্থানীয়রাই তাঁকে উদ্ধার করে বিষ্ণুপুর সুপার স্পেশ্যালিটি হসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। হাসপাতালের গেল চিকিত্সকরা সুজয়কে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এরপরই সুজয়ের পরিবার মধুসূদন মাজির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে।

অন্যদিকে, সুজয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে মধুসূদন নিজে বিষ্ণুপুর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে। যদিও মধুসূদনের ভাইয়ের দাবি, তার দাদা সুজয়কে খুন করেনি। এর পিছনে অন্য কেউ রয়েছে। মধুসূদন ও সুজয়ের মধ্যে ঠিক কী কারণে বচসা বেধেছিল তাও স্পষ্ট নয়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here