মহানগর ওয়েবডেস্ক: ভারতীয় ক্রিকেট ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে খোদাই করা আছে গ্যারি কার্স্টেনের নাম। দক্ষিণ আফ্রিকার কোচের সৌজন্যেই ভারত টেস্টে এক নম্বর দল হওয়ার পাশাপাশি ঘরের মাঠে পঞ্চাশ ওভারের বিশ্বকাপ জেতে।

গুরু গ্রেগ চ্যাপেলের বিতর্কিত অধ্যায় শেষ হওয়ার পরেই ২০০৭ সালে কার্স্টেনের জমানা শুরু হয়। তাঁর কোচিংয়েই অভিষেক করেন বিরাট কোহলি। সালটা ছিল ২০০৮। দলে শচীন তেন্ডুলকরের মতো মহাতারকার সঙ্গে কোহলির মতো তাজা রক্ত মেশানোর কাজটা দুর্দান্ত করেন কার্স্টেন।

কার্স্টেন এক সাক্ষাৎকারে জানান যে, কোহলির মধ্যে তিনি যাবতীয় সম্ভাবনা দেখেছিলেন শুরুর দিনেই। কিন্তু কোচের মনে হয়েছিল কোহলি নিজের সেরাটা দিতে পারছেন না। কোহলিকে উড়িয়ে খেলতে বারণ করেন তিনি।

কার্স্টেন বলছেন, “আমি যখন প্রথম বিরাটকে দেখি ওর বয়স তখন অল্প ছিল। যাবতীয় সম্ভাবনা ও প্রতিশ্রুতি ছিল কোহলির। কিন্তু আমি বুঝেছিলাম যে ও নিজের সেরাটা বার করে আনতে পারছে না। ওর সঙ্গে অনেক আলোচনা করি আমি।”
কার্স্টেনের স্মরণে রয়েছে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ভারতের ওয়ানডে সিরিজের কথা। তিনি বলছেন, “আমি এই সিরিজটা ভুলতে পারব না। কোহলি দুর্দান্ত ব্যাট করছিল। ৩০-এর ওপর রান করে ফেলেছিল। তখন ও সিদ্ধান্ত নেয় বোলারকে লং-অনের ওপর দিয়ে ছয় মারবে। কিন্তু ও আউট হয়ে যায়। আমি তখন ওকে বলি তুমি যদি খেলাটা অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে চাও তাহলে তোমাকে মাটি কামড়ে শট নিতে হবে। তুমি উড়িয়ে খেলতেই পারো, কিন্তু সেখানে অনেক ঝুঁকি থেকে যায়। আমার মনে হয় ও কথাটা মন দিয়ে শোনে। পরের ম্যাচে কলকাতায় সেঞ্চুরি পায়।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here