ডেস্ক: কর্ণাটকে হলে গোয়া, মণিপুর, মেঘালয় ও বিহারে নয় কেন? সাত সকালে বিএস ইয়েদুরাপ্পা শপথ নেওয়ার পর থেকেই ধর্নায় বসেছিলেন কংগ্রেস নেতারা। এবার বিজেপির অস্ত্রেই বিজেপিকে ঘায়েল করতে উঠেপড়ে লাগলেন বিরোধী নেতামন্ত্রীরা। কর্ণাটকের ফর্মুলা কাজে লাগিয়েই নির্বাচনে বৃহত্তর দল হওয়ার কারণে সরকার গঠনের দাবিতে রাজ্যপালদের দ্বারস্থ হলেন বিরোধী শিবিরের নেতারা।

সূত্রের খবর, গোয়াতে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে সময় চেয়েছেন কংগ্রেসের নেতারা। বিহারে লালু পুত্র তেজস্বী যাদবও সময় চেয়েছেন রাজ্যপালের কাছে। একই দৃশ্য মণিপুর এবং মেঘালয়েও। সেখানেও রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার জন্য সময় চাইলেন কংগ্রেসের নেতারা। বলে রাখা ভাল, গোয়া, মণিপুর, মেঘালয় ও বিহারেও একই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। সেখানে কংগ্রেস ও বিহারে লালুর দল ম্যাজিক ফিগার না অতিক্রম না করলেও বৃহত্তর সমর্থন পেয়েছিল। কিন্তু তাদের সরকার গঠনের ও আস্থা প্রমাণের সুযোগ না দিয়ে কম আসন পাওয়া বিজেপিই আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে জোট গড়ে সরকার গঠন করে।

প্রসঙ্গত, ৪০ বিধানসভা আসন বিশিষ্ট গোয়াতে ১৬টি আসন পেয়েছিল কংগ্রেস। অন্যদিকে ১৪টি আসন পেয়েই বাকি দলগুলিকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে সরকার গঠন করে বিজেপি। বিহারেও লালুর আরজেডির থেকে নির্বাচনে কম আসন পেয়েছিল নীতীশের জেডিইউ। যদিও নির্বাচনের পূর্বেই লালু এবং নীতীশের মধ্যে মহাজোট হয়েছিল। কিন্তু মহাজোট ভাঙার পর লালুর দলকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের সুযোগ দেওয়া হয়নি। একই দৃশ্য মেঘালয়েও। সেখানে কংগ্রেস ২০টি আসন পেয়েও সরকার গঠন করতে পারেনি। কিন্তু, বিজেপি মাত্র ২টি আসন পেয়েই সরকার গঠন করে। মণিপুরেও কংগ্রেসের দখলে ছিল ২৮টি আসন। বিজেপি পেয়েছিল ২১টি সেখানেও আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে জোট বেঁধে সরকার বানায় বিজেপি।

কিন্তু কর্ণাটকে কংগ্রেস ও জেডিএসের সম্মিলিত আসন বিজেপির থেকে বেশি হওয়া সত্ত্বেও বিজেপিকেই সরকার গঠনের ও আস্থা প্রমাণের সুযোগ দিয়েছেন রাজ্যপাল। এখানেই বিরোধীদের ক্ষোভ উঠে এসেছে। বাকি রাজ্যগুলির ক্ষেত্রে বিচার এক রকমের হলে কর্ণাটকের ক্ষেত্রে কেন এই দ্বিচারিতা। বাকি রাজ্যগুলির ক্ষেত্রে সর্বাধিক আসন পেয়েও সরকার গঠন করার সুযোগ কেন দেওয়া হল না তাদের? এই দাবি নিয়েই সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলির রাজ্যপালের কাছে দ্বারস্থ হচ্ছেন কংগ্রেস নেতা সহ তেজস্বী যাদব। মনে করা হচ্ছে, রাজ্যপালের কাছে এই দাবির সুরাহা না হলে, নজিরবিহীন ভাবে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারেও এই নালিশ নিয়ে যেতে পারেন তারা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here