দেবী দুর্গার আদেশ পেয়েই পূজিতা হন আদি চন্ডী

0
134

নিজস্ব প্রতিবেদক, উত্তর দিনাজপুর: বন্ধ হয়ে গিয়েছিল দুর্গা পুজো। আবার জাঁকজমক করে শুরু হয়েছে দেবী দুর্গার আরাধনা। তবে আদি চন্ডী রূপে। কথিত আছে, এক গৃহবধূর ওপর ভর করেন দেবী। আদেশ দেন আবার পুজো শুরু করার তবে ৪০০ বছরের আদি চন্ডী রূপে। এবার ৪০০ বছরের পুরানো চণ্ডী রূপে দুর্গা মন্দিরে ধুমধামের সঙ্গে পুজা হচ্ছে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জের থানা পাড়ায়। থানা পাড়ার চার শতাধিক বছরের পুরানো মন্দির তৈরি করেছিলেন মৃত চিত্তরঞ্জন দাসের পূর্বপুরুষেরা। মন্দিরের দেওয়ালে মন্দির স্থাপনের ইতিবৃত্ত লেখা থাকলেও আজ পর্যন্ত কেউ, সেই লেখা বুঝে উঠতে পারেনি।

প্রায় ৬০ বছরের আগে পর্যন্ত এই মন্দিরে দুর্গা পুজার সময় মা চণ্ডীর রূপে দুর্গা আরাধনায় মেতে উঠতেন কালিয়াগঞ্জের সাধারণ মানুষজন। ভোগ বিতরণ সহ পাঁঠাবলি ও বিশাল মেলার আয়োজন দেখতে দুরদুরান্ত থেকে গরুর গাড়ি করে এখানে প্রচুর মানুষ আসতো। সময়ের পট পরিবর্তনে আজ সবই অতীত। আজ আর কিছুই নেই। এখানকার দুর্গা এক চালায় পূজিতা। লক্ষ্মী ও সরস্বতী ঠিক জায়গায় থাকলেও এবং গণেশের জায়গায় কার্ত্তিক ও কার্তিকের জায়গায় রয়েছেন গনেশ। চুন সুরকীর তৈরি চার চালার মন্দিরের গাঁ ঘেঁষে বর্তমানে গজিয়ে ওঠা পাকুড় গাছের শেকড়ে ফেটেছে পাঁচিল। মন্দিরের অবস্থা জরাজীর্ণ। লোক সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় মন্দিরের চারিদিকে গজিয়ে উঠেছে প্রচুর জনবসতি। দেবী আদেশ পাওয়ার পরে, এলাকার মানুষের আর্থিক সহতায় মন্দিরের ভিতরে পাথর বসানো হয়েছে।

জনশ্রুতি, বেশ কয়েক বছর ধরে মন্দির চত্বরে এলাকার মানুষ ফেলতে শুরু করেছিল বর্জ্য পদার্থ। আর এতেই ঘটেছে বিপত্তি। বেশ কিছু দিন আগে মন্দিরের পার্শ্ববর্তী এলাকায় এক গৃহবধূর ওপর ভর করেন দেবী। গৃহবধূর এমন অবস্থা দেখে পরিবারের সদস্যরা তাঁকে তড়িঘড়ি কালিয়াগঞ্জ ষ্টেট জেনারেল হাসপাতাল ও পরে রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতাল সহ মালদার বিভিন্ন ডাক্তার দেখালেও ডাক্তার বাবুরা গৃহবধূর শরীরে কোনও রোগের লক্ষণ ধরতে পারেননি বলে পারিবারিক সূত্রে জানা যায় । তাঁদের আরও দাবি মালদাতে চিকিৎসা চলা কালীন সময়ে ভরের মধ্যেই কথা বলতে থাকেন গৃহবধূ। কালিয়াগঞ্জের মন্দির চত্বরে এলাকাবাসীদের নোংরা আবর্জনা ফেলা নিয়ে রাগান্বিত ভাবে তা বন্ধের নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি ভরের মধ্যে থেকেই তড়িঘড়ি মা চণ্ডীর পূজা দেওয়ার নির্দেশ দেন, তা না হলে ঘোর অমঙ্গলের সম্ভবনার কথাও জানান তিনি। সেই কথা মাথায় রেখেই দেবী দূর্গার পূজো ঢাক ঢোল বাজিয়ে ধুমধামের সঙ্গে মা চণ্ডীর দূর্গার আরাধনায় মাতেনকালিয়াগঞ্জের থানা পাড়ার বাসিন্দারা। এবছর চতুর্থ বছরে পড়লো দেবী আরাধনা। এবারের দুর্গা পুজোয় কোন খামতি রাখতে চান না থানা পড়ার বাসিন্দারা। জোরকদমে প্রস্তুতি বলে জানান এলাকার বাসিন্দা মনোজ সরকার ও পীযূষ সুত্রধরেরা। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা দেবী বোধনের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here