kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বর্ধমান: পুরো হিন্দি সিনেমার স্টাইলে বর্ধমান শহরের খাগড়াগড় এলাকায় তথা একটি দোকানের সামনে বোমা রেখে ৫ লক্ষ টাকা তোলা চাইল তোলাবাজরা। আর এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বর্ধমান শহরের ব্যবসায়ী মহলে। জানা গেছে, সোমবার রাত্রি ন’টা নাগাদ বর্ধমান থানার খাগড়াগড় আর কেষ্টপুরের মাঝে একটি ইলেকট্রিকের দোকানের সামনে বাইকে করে আসা দুই দুস্কৃতী একটি তাজা বোমা রেখে দিয়ে পালায়। পরে ফোন করে দোকান মালিককে হুমকিও দেওয়া হয়, ‘এটা ট্রেলার দেখালাম। পাঁচ লাখ টাকা না দিয়ে গেলে এবারে বোমা ফাটবে।’

দোকানের মালিক কাজল মল্লিকের বাড়ি বর্ধমান শহরের রসিকপুর এলাকায়। তার এই ইলেকট্রিকের দোকানটি রয়েছে খাগড়াগড় মোড় এবং কেষ্টপুরের মাঝে। দীর্ঘদিনের পুরনো ব্যবসায়ী তিনি। কাজলবাবু জানিয়েছেন, ‘রাত ন’টার একটু আগে ফোন করে একজন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে হিন্দীতে। আমি রং নম্বর মনে করে কেটেদি। তার কিছু পরেই আমার ছেলে সজল ফোন করে আমাকে জানায় যে আমাদের দোকানের সামনে বোমা ফেলা হয়েছে। এরপরে আবারও ওই নম্বর থেকে ফোন করে হিন্দীতে বলে, এটা ট্রেলার ছিল। পাঁচ লাখ টাকা না দিলে দোকান বোমা মেরে উড়িয়ে দেব। এরপরই আমি গোটা বিষয়টি পুলিশকে জানআতে বাধ্য হই।’

উল্লেখ্য, কাজলবাবুর দোকান থেকে খাগড়াগড়ের দূরত্ব ত্রিশ থেকে চল্লিশ মিটার। সোমবার রাত্রে খাগড়াগড়ে বোমা উদ্ধার হয়েছে – এই খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে শহর জুড়ে। সৃষ্টি হয় চাঞ্চল্য। ২০১৪ সালের ২ অক্টোবর খাগড়াগড় বিস্ফোরণের স্মৃতি নতুন করে চাগাড় দিয়ে ওঠে। যদিও খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে হাজির হয় বর্ধমান থানার আইসি সহ ডিএসপি হেড কোয়ার্টার শৌভিক পাত্র। শৌভিকবাবু জানিয়েছেন, তদন্তও শুরু হয়েছে। কিন্তু এভাবে দোকানের সামনে বোমা রেখে ৫ লক্ষ টাকার তোলাবাজির হুমকি দেবার ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। পুলিশ মঙ্গলবার অন্যান্য দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। এদিকে, দোকানের মালিককে ফোন করে বোমা রেখে যাওয়ার কথা শুনিয়ে টাকা আদায়ের ঘটনায় রীতিমত আতংক ছড়িয়েছে বর্ধমান শহরের ব্যবসায়ী মহলে। প্রশ্ন উঠেছে শহরের নিরাপত্তা নিয়েও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here