নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্যারাকপুর: বুধবার উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ব্যারাকপুর বি.এন.বসু মহকুমা হাসপাতালে এক রোগীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়াল ওই হাসপাতালে। মৃত ওই রোগীর নাম কৌশর আলী(৫৪)। চিকিৎসায় গাফিলতির কারনে ওই রোগীর মৃত্যু হয়েছে এই অভিযোগ তুলে মৃত রোগীর পরিবারের আত্মীয়রা এবং তাদের ঘনিষ্ঠরা ওই সরকারি হাসপাতালে ঢুকে ব্যাপক ভাঙচুর করে। ভাঙচুর করা হয় মেল মেডিসিন ওয়ার্ডে। মৃত রোগীর আত্মীয়দের হাতে মার খেয়ে জখম হন হাসপাতালে কর্তব্যরত এক চিকিৎসক সহ তিন জন নার্স। মৃত রোগীর আত্মীয়রা গোটা হাসপাতাল ভাঙচুর করে লন্ডভন্ড করে দেয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, আনুমানিক লক্ষাধিক টাকার জীবনদানকারী ওষুধ ও সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে মৃত রোগীর পরিবারের আত্মীয়রা।

হাসপাতাল সূত্রের খবর, ব্যারাকপুর বি.এন.বসু মহকুমা হাসপাতালে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে মঙ্গলবার গভীর রাতে ভর্তি হন টিটাগড় জি.সি রোডের বাসিন্দা কৌসর আলী। বুধবার দুপর বারোটার সময় ফের ওই রোগীর শ্বাসকষ্ট উঠলে তাকে একটি ইঞ্জেকশন দেন কর্তব্যরত নার্সরা। এরপর এদিন দুপুর বারোটা পঁয়তাল্লিশ মিনিটে অসুস্থ ওই রোগী মারা গেলে মৃত রোগীর পরিবারের আত্মীয়রা ওই রোগীর মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের চিকিৎসায় গাফিলতিকেই দায়ী করে। মৃতের পরিবারের আত্মীয়রা ব্যাপক ভাঙচুর চালায় হাসপাতালের ভিতরর। মৃত কৌশর আলির বাড়ির লোকজন মারধর করে ওই মেল ওয়ার্ডে থাকা ডাক্তার, নার্স এবং কর্মসাথীর এক কর্মীকেও। নার্সদের সাদা পোশাক টেনে রোগীর আত্মীয়রা ছিঁড়ে দেয় বলে তাদের অভিযোগ। মেল মেডিসিন ওয়ার্ডে ভাঙচুরের ঘটনার খবর পেয়ে টিটাগড় থানার পুলিশ দ্রুত ছুটে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ সরকারি সম্পত্তি নষ্টের অভিযোগে দুজন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতদের নাম মোহাম্মদ জাবেদ ও শেখ আবিদ আলী। এদের বিরুদ্ধে লক্ষাধিক টাকার জীবনদায়ী ওষুধ নষ্ট, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট, হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তার ও নার্সদের উপর হামলা, সরকারি জিনিসপত্র, আলমারি, আসবাবপত্র নষ্ট ও ভাঙচুরের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

হাসপাতাল সুপার সুদীপ্ত ভট্টাচার্য জানান, আমাদের এই হাসপাতালের কর্তব্যরত একজন ডাক্তার, তিন জন নার্স সহ একজন কর্মসাথী প্রকল্পের কর্মী আক্রান্ত হয়েছে মৃত রোগীর বাড়ির লোকজনের হাতে। ওই রোগীর পরিবারের আত্মীয়দের অভিযোগ ভিত্তিহীন। যিনি মারা গেছেন তিনি হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর থেকে তার যথেষ্ট ভালো চিকিৎসা করা হয়েছে। ডাক্তার ওই রোগীকে এদিন দুপুর পর্যন্ত ৪/৫ বার দেখেছেন। নার্সরা সর্বক্ষণ পর্যবেক্ষনে রেখেছিল শ্বাসকষ্টে ভুগতে থাকা ওই রোগীকে। আজ দুপুরেও তাকে দেখে গেছে ডাক্তাররা। তবে হঠাৎই ওনার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তার মৃত্যু হয়। তবে ওই রোগীকে যথেষ্ট ভালো পরিষেবা দেওয়া হয়েছিল।’ এদিকে বিকেল পর্যন্ত ব্যারাকপুর বি এন বসু মহকুমা হাসপাতাল চত্বরে ব্যাপক উত্তেজনা থাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে টিটাগড় থানার পক্ষ থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here