Home Featured Vaccination: পশ্চিমের দেশগুলো পিছনে ফেলছে ভারতকে, কেন্দ্রের আশ্বাসেও নেই ভরসা!

Vaccination: পশ্চিমের দেশগুলো পিছনে ফেলছে ভারতকে, কেন্দ্রের আশ্বাসেও নেই ভরসা!

0
Vaccination: পশ্চিমের দেশগুলো পিছনে ফেলছে ভারতকে, কেন্দ্রের আশ্বাসেও নেই ভরসা!
Parul

মহানগর ডেস্ক: কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল চলতি বছরের মধ্যেই ভারতের সকলে পাবেন করোনা ভ্যাকসিন। টিকাকরণের ক্ষেত্রে জোর দেওয়া হবে বলে দেওয়া হয়েছিল আশ্বাস। কিন্তু সরকারের কথায় ভরসা করতে পারছেন না বিশেষজ্ঞরাও। অতিমারির তৃতীয় পর্যায়ের আগে প্রমাদ গুনছেন কেউ কেউ।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সোমবার করোনার টিকা দেওয়া হয়েছিল ৮৮ লক্ষ নাগরিককে। মঙ্গলবার এই সংখ্যাটা কমে গিয়েছিল ব্যাপকভাবে। এদিন কোভিড ভ্যাকসিন পেয়েছেন ৫৪.২২ লক্ষ মানুষ। অর্থাৎ গত দিনের তুলনায় ৩৪ লক্ষেরও কম ব্যক্তি পেয়েছেন টিকা। কেন্দ্রের দেওয়া কথা অনুযায়ী অবশিষ্ট ছ’মাসের মধ্যে দেশের প্রত্যেকে পাবেন করোনার প্রতিষেধক। শেষের দিকে জুন মাস। অর্থাৎ হাতে রয়েছে বড়জোর আর ৬ মাস।

শেষ পর্যন্ত কেন্দ্র কথা রাখতে পারবে কি না সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হয়েছিল স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভাগের এক কর্তাকে। টিকাকরণ সংক্রান্ত জাতীয় উপদেষ্টা গোষ্ঠীর সভাপতি ডাক্তার এন কে অরোরা বলেছেন, ‘দৈনিক এক কোটি ব্যক্তিকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কেন্দ্র। আমাদের যা সামর্থ্য তাতে প্রত্যেক দিন ১.২৫ কোটি ডোজ মজুত রাখা সম্ভব।’

যদিও অশোকা বিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং গবেষক গৌতম মেনন বলেছেন, ‘আমার মনে হয় না এই সময় কালের মধ্যে সকলকে ভ্যাকসিন দিয়ে উঠতে পারবে সরকার। সোমবারের যে পরিসংখ্যান আশার আলো বেশি ছিল তার ব্যাতিক্রম মাত্র। রাজ্যগুলো হয়তো কিছু ভ্যাকসিন জমিয়ে রেখে ছিল এই দিনটির জন্য। প্রত্যেক দিন ১০ মিলিয়ন ডোজ দিতে না পারলে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব নয়।’

ওষুধ উৎপাদন এর ব্যাপারে বিশ্বদরবারে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে ভারতের। কিন্তু করোনা প্রতিষেধক উৎপাদনের ক্ষেত্রে নিজের নামের প্রতি এখনও সুবিচার করতে পারেনি দেশ। এ কঠিন সময়ে চীন-সহ পশ্চিমের একাধিক দেশগুলি পেছনে ফেলে দিয়েছে ভারতকে। দৈনিক হিসেবে পশ্চিমের বহু দেশে ২০ মিলিয়ন ডোজ উৎপাদন করা হচ্ছে। এপ্রিল মাস থেকে করোনার ভ্যাকসিন রফতানি করা বন্ধ করে দিয়েছিল ভারত সরকার। তবুও এখনো পর্যন্ত মাত্র ৪ শতাংশ নাগরিক পেয়েছেন কোভিড ভ্যাকসিন। পরিস্থিতি দ্রুত বদল না হলে অচিরেই অতিমারির তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here