মহানগর ওয়েবডেস্ক: গত মাসে দেশের উত্তর পূর্ব লাদাখ সীমান্তে চিনের ন্যাক্কারজনক হামলাকে আর কোনওভাবেই বরদাস্ত করবে না ভারত সরকার। ফলস্বরূপ আসন্ন শীতকে মাথায় রেখে লাদাখের বরফঢাকা প্রান্তরে ৩৫ হাজার সেনা মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সরকার। যে সমস্ত সেনা জওয়ানদের সেখানে মোতায়েন করা হচ্ছে তারা পাহাড়ি অঞ্চলে যুদ্ধের জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।

চিনের সঙ্গে সীমান্ত ইস্যুতে যে দ্বন্দ্ব ভারতের শুরু হয়েছে তা যে এখনই মেটার নয় সেটা বেশ বুঝতে পারছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এদিকে গোটা বিশ্ব এক বাক্যে স্বীকার করে পাহাড়ি অঞ্চলে যুদ্ধের জন্য সেরা সৈনদল রয়েছে ভারতের হাতে। চিনের পরিস্থিতির দিকে নজর দেখে লাদাখের বরফঢাকা প্রান্তরে তাই পাহাড়ে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ৩৫ হাজার সেনা মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যদিও ভারতের মত পাহাড়ি এলাকায় যুদ্ধে মোটেই দক্ষ নয় চিনের সেনাবাহিনী। জানাযায় সমতল ভূমি থেকে সরাসরি লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন করা হয় লাল ফৌজকে। ফলে ওই এলাকায় ভারতীয় সেনার সঙ্গে যুদ্ধে নামলেও তা মোটেই সুবিধাজনক হবে না চিনের কাছে।

প্রসঙ্গত, বিগত প্রায় এক মাসেরও বেশি সময় ধরে উত্তপ্ত লাদাখ সীমান্ত। লাদাখের গালোয়ান ঘাঁটিতে ২০ সেনা জওয়ানের মৃত্যুর ঘটনায় তেতে রয়েছে দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক। যদিও আলোচনার মাধ্যমে আগ্রাসী মনোভাব ছেড়ে বেশ কিছু জায়গায় পিছু হটেছে চিনের সেনাবাহিনী। এখনো কিছু জায়গায় ঘাঁটি গেড়ে বসে আছে তারা। যার মধ্যে অন্যতম প্যাঙ্গং এলাকা। অবশ্য আলোচনার মাধ্যমে জারি রয়েছে পিছু হঠার পর্ব। তবে চীনকে আর কোন ভাবেই বিশ্বাস করতে রাজি নয় ভারত তাই কোনওরকম কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হলে তার জন্য আগাম প্রস্তুতি স্বরূপ লাদাখের বরফঢাকা প্রান্তরে মোতায়েন করা হচ্ছে ৩৫ হাজার সেনাকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here