kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রবল বিক্ষোভের মাঝে যাদবপুরের ছাত্রছাত্রীদের হাত থেকে রেহাই পেলেন না রাজ্যের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। এদিন বাবুল সুপ্রিয়কে বিক্ষোভরত ছাত্র ছাত্রীদের হাত থেকে রক্ষা করতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়ে গেলেন খোদ রাজ্যপাল। জগদীপ ধনকড়ের গাড়ির সামনে বসে পরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করল কয়েক শ ছাত্রছাত্রী। যার জেরে আরও উত্তাল পরিস্থিতি তৈরি হল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে।

বৃহস্পতিবার নবীন বরণ অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে এবিভিপির অনুরোধে ক্যাম্পাসে আসেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। তিনি আসার পরই উত্তাল হয়ে ওঠে যাদবপুর ক্যাম্পাস। প্রথমে কালো পতাকা দেখিয়ে চলে বিক্ষোভ। পরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেঙে হামলা চালানো হয় বাবুলের উপর। তাঁকে ধাক্কা দেওয়ার পাশাপাশি, চুল টেনে ধরা হয়। ধাক্কাধাক্কিতে পরে যান বাবুল। ছিড়ে যায় জামার কলার। পরিস্থিতির খোঁজ নিয়ে উপাচার্য সুরঞ্জন দাসকে ফোন করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। একই সঙ্গে রাজ্যপাল ফোন করেন মুখ্য সচিব মলয় দে কে। দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য তাঁকে নির্দেশ দেন তিনি। এরপর নিজেই গাড়ি নিয়ে রওনা দেন ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে। সেখানে এসে পুলিশ ও নিরাপত্তারক্ষীদের সাহায্যে বাবুল সুপ্রিয়োর কাছে পৌঁছন তিনি। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে তোলেন গাড়িতেও। তবে ক্যাম্পাস থেকে বের হতে পারেননি রাজ্যপাল। তাঁর গাড়ির সামনে বসে পড়ে কয়েক’শ ছাত্রছাত্রী। স্লোগান ওঠে বাবুলকে নিয়ে যেতে চাইলে তাদেরকে চাপা দিয়ে যেতে হবে। বলা বাহুল্য ক্যাম্পাসে আটকে পড়ে রাজ্যপালের গাড়ি। পুলিশের অনুরধ সত্ত্বেও ওঠেনি ঘেরাও। গাড়ির ভেতর আটকে রয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়ো ও রাজ্যপাল।

ওদিকে আবার এই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু করে এবিভিপির সদস্যরা। ইউনিয়র রুমে ব্যাপক ভাঙচুরের পাশাপাশি চার নম্ভর গেটের বাইরে লাঠি বাঁশ জড়ো করে ধরানো হয় আগুন। ইউনিয়ন রুমে লাল কালিতে লিখে দেওয়া হয় এবিভিপি। ছাত্রদের অভিযোগ বাইরে থেকে লোক ঢুকে এই হামলা চালানো হয়েছে। সবমিলিয়ে আপাতত উত্তাল পরিস্থিতি যাদবপুরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here