মহানগর ওয়েবডেস্ক: সাল ২০০৫ থেকে ২০০৭। এই দু’বছরে ভারতীয় ক্রিকেটকে অনেকটাই পিছিয়ে দিয়েছিলেন গ্রেগ চ্যাপেল। এমনটাই মনে করেন তাঁর কোচিংয়ে খেলা ভারতীয় দলের তাবড় প্রাক্তন ক্রিকেটাররা।

ভারতে গ্রেগের ক্রিকেট দর্শন চূড়ান্ত সমালোচিত হয়। পাশাপাশি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে তিনি ক্যাপ্টেনসি থেকে সরিয়ে আনার পর দেশে আগুন জ্বলে যায়। এছাড়াও বহু ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক একেবারে সাপে-নেউলে হয়ে যায়। পরে বীরেন্দ্র শেহওয়াগ, হরভজন সিং, জাহির খানের মতো ক্রিকেটাররা চ্যাপেলকে ধুয়ে দেন।

চ্যাপেলকে অনেক ক্ষেত্রে দায়ী করা হয় টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন পেসার ইরফান পাঠানের কেরিয়ার শেষ করার জন্য। একজন বোলারকে অলরাউন্ডার বানিয়ে তিনে ব্যাট করতে পাঠানোর জন্য গুরু গ্রেগকে অনেকেই ক্ষমা করেননি। কিন্তু পাঠান সাফ বলে দিলেন যে, চ্যাপেল তাঁর কেরিয়ার শেষ করেননি। তাঁকে ভুল বোঝা হয়েছে।
ইনস্টাগ্রাম লাইভে পাঠান বলছেন, “চ্যাপেল আমার কেরিয়ার নষ্ট করেননি। এটা ভুল কথা। যেহেতু উনি দেশের বাইরের লোক ছিলেন ফলে ওনাকে টার্গেট করা সহজ ছিল। আমি আবার অবসরের পরেও এই কথাটাই বলেছিলাম। যাঁরা বলেন যে, চ্যাপেল আমাকে অলরাউন্ডার বানিয়ে তিনে নামিয়ে কেরিয়ার শেষ করেছেন, তাঁরা ভুল বলেন। আসলে এটা শচীন পাজির ভাবনা ছিল। ও রাহুল দ্রাবিড়কে পরামর্শ দেয় আমাকে তিনে নামানোর জন্য। কারণ শচীন বলেছিল আমি নতুন বলে ফাস্টবোলারকেও ছয় মারার ক্ষমতা রাখি। তাই আমাকে যেন তিনে ভাবা হয়।”

পাঠান আরও জানান, “আমাকে প্রথমবারের জন্য শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিনে নামানো হয়েছিল। মুরলীথরন তখন কেরিয়ারের শীর্ষে। অন্যদিকে দিলহারা ফার্নান্দো স্প্লিট-ফিঙ্গার স্লোয়ার বল চালু করেছে। ব্যাটসম্যান সেটা বুঝতে পারত না খুব একটা। দলের বিশ্বাস ছিল আমি পারব। সেটা কাজে লেগে যায় সিরিজের প্রথম ম্যাচেই।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here