ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ নাকি সিবিআই গ্রেফতারের থেকে একটুর জন্য বেঁচে গেছিলেন। বুধবার এরকমই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এল দেশবাসীর কাছে। এদিন এই মন্তব্যই করলেন গুজরাতের প্রাক্তন ডিআইজি পুলিশ ভানজারা। তখনও প্রধানমন্ত্রী হননি নরেন্দ্র মোদী, আর বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি হননি অমিত শাহ।

২০০৪ সালে তখন নরেন্দ্র মোদী গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী এবং অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেইসময় ইশরত জাহানের ভুয়ো এনকাউন্টার মামলায় সিবিআই তাঁদের গ্রেফতার করতে চেয়েছিল। এরকমই দাবী করছেন প্রাক্তন ডিজি। কিন্তু শেষ অবধি তাদের গ্রেফতার করা হয়নি। এই মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত ছিলেন ভানজারা। কিন্তু এখন জামিনে মুক্ত হয়ে আছেন।

২০০৪ সালের জুন মাসে ইশরত জাহান ও তাঁর বন্ধুরা মিলে তৎকালীন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে খুন করার ছক কষে। পরে পুলিশ সেই খবর পায়। সেইসময় ডিআইজি ছিলেন ভানজারা। তাঁর কাছেই এই মামলাটি আসে। পরে তিনিই এই ইশরত ও তাঁর বন্ধুদের এনকাউন্টার করেন। কিন্তু সিবিআই এই এনকাউন্টারকে ভুয়ো বলে কোর্টের কাছে রিপোর্ট পেশ করে। এই ঘটনা নিয়ে গুজরাতের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে গোপনে সিবিআই জিজ্ঞাসাবাদ করে বলে তিনি জানিয়েছেন। এই মামলায় নরেন্দ্র মোদী ছাড়া পেয়ে যায়, এবং ২০১৪ সালে প্রমাণের অভাবে অমিত শাহকেও সিবিআই বেকসুর খালাস করে ছেড়ে দেয়।
এদিন ভানজারার আইনজীবী মুক্তির আবেদন জানালে সিবিআই তার বিরোধিতা করেছে। ফের ১৫ জুন এই মামলার শুনানি হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here