মহানগর ওয়েবডেস্ক: অনলাইনে ক্লাস করলে বিদেশি পড়ুয়াদের ফিরে যেতে হবে, মার্কিন প্রশাসনের এই ঘোষণা শুনে মাথায় আকাশ ভেঙে পড়েছে আমেরিকায় পড়তে যাওয়া বহু ছাত্র–ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের। করোনাভাইরাস অতিমারীর কারণে আমেরিকার বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সকলের নিরাপত্তার জন্যই অনলাইন ক্লাস চালু করেছে। এই ঘোষণার ফলে চাপ তৈরি হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির ওপর। ট্রাম্প প্রশাসনের এই ঘোষণার ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে ফেডারেল কোর্টের শরণাপন্ন হল হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও এমআইটি। প্রশাসনের এই ঘোষণা ‘বেআইনি’ আখ্যা দিয়ে পৃথিবী বিখ্যাত দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আদেশটিকে কার্যকরী না করার আবেদন জানিয়েছে আদালতের কাছে।

আদালতের সাময়িক আদেশের ফলে ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট নীতি ১৪ দিনের জন্য স্থগিত থাকবে। আদালতে পেশ করা আবেদনে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে বলা হয়েছে, অন্তর্দেশীয় নিরাপত্তা বিভাগের নীতির ওপর বিশ্ববিদ্যালয় আস্থা রেখেছিল যে নীতি অনুসারে মার্চ থেকে বিদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকায় থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এই বিতর্কিত ঘোষণা অনুযায়ী যে সব বিদেশি পড়ুয়া আমেরিকায় ডিগ্রি পাওয়ার জন্য এসেছে তাদের সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলি যদি অনলাইন ক্লাস নেয় তাহলে বিদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছেড়ে নিজেদের দেশে ফিরে যেতে হবে।

যেসব বিশ্ববিদ্যালয় আগামী সেমিস্টারের জন্য শুধুমাত্র অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা করেছে তাদের প্রতিষ্ঠানের বিদেশি পড়ুয়াদের মার্কিন স্বরাষ্ট্র দফতর কোনও ভিসা দেবে না এবং আমেরিকার কাস্টমস এবং সীমান্ত সুরক্ষা পারমিট তাদেরকে না দেওয়ায় তারা আমেরিকায় ঢুকতে পারবে না বলে জানানো হয়েছে ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট থেকে। প্রশাসন থেকে বলা হয়েছে আমেরিকায় থাকতে গেলে পড়ুয়াদের ক্লাসে বসে পড়াশুনো হচ্ছে এমন কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজের নাম নথিভূক্ত করতে হবে।

ট্রাম্প প্রশাসনের এই আদেশের ফলে আড়াই লক্ষেরও বেশি ভারতীয় পড়ুয়ার ভবিষ্যত নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। আমেরিকায় বিদেশি পড়ুয়াদের মধ্যে সবথকে এগিয়ে (সংখ্যায়) রয়েছে চিন আর তারপরই রয়েছে ভারত। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে গেলে পড়ুয়াদের এফ–১ ভিসা দেওয়া হয়। যে সব কোর্স সম্পূর্ণ অনলাইনে চলবে সেইসব কোর্সের জন্য আর এফ–১ ভিসা দেওয়া হবে না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে তাদের দরজা খোলানোর জন্যই ট্রাম্প এই চাপ দিয়েছেন বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here