kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: হিন্দিকে রাষ্ট্রভাষা হিসেব ঘোষণা করার দাবি তুলেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। যা নিয়ে অ-হিন্দি ভাষাভাষী রাজ্যগুলি ইতিমধ্যেই সুর চড়িয়েছে। এবার হিন্দি বিতর্কে নিজের নাম জড়ালেন পুদুচেরির রাজ্যপাল তথা প্রাক্তন আইপিএস কিরণ বেদী। অমিতের দাবির স্বপক্ষে সমর্থন জানিয়ে দক্ষিণের বাসিন্দাদের কাছে তিনি আবেদন করেছেন, তারা যেন ভারত সরকারের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আরও নিবিড় করে গড়ে তুলতে হিন্দিটা শিখে ফেলেন।

অমিত শাহের বক্তব্যকে সমর্থন করে কিরণ দাবি করেছেন, একটি ভাষা মানুষের সঙ্গে মানুষের আবেগের সংযোগ আরও বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। নিজের উদাহরণ পেশ করে কিরণ বলেন, ‘এখানে আমায় সর্বদা ট্রান্সলেটর ব্যবহার করতে হয়। আর অ-হিন্দি ভাষী কোনও ব্যক্তি যদি আমাদের ভাষা (হিন্দি) শেখেন তবে এটা ভাবার কারণ নেই যে তারা নিজেদের শিক্ষা বা সংস্কৃতি ভুলে যাচ্ছেন।’ বিশেষ করে অ-হিন্দি ভাষী দুই রাজ্যের মানুষ যখন কথাবার্তা বলেন তখন তাদের একমাত্র মাধ্যম হয় ইংরেজি। এখানেই কিরণের যুক্তি, কেন আমাদের নিজস্ব ভাষা হিন্দি এই জায়গা নিতে পারবে না? কেন বাইরের দেশের ভাষা ব্যবহার করে নিজেদের মধ্যে কথা বলবেন ভারতীয়রা?

এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে কিরণ বেদী দাবি করছেন, একমাত্র ট্রান্সলেটরই দক্ষিণীদের এই মুশকিল আসান করতে পারে। তাঁর বক্তব্য, দিল্লিতে নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য বা সরকারের কোনও কাজের জন্যও তো হিন্দি প্রয়োজন। আর প্রয়োজন অনুসারে দক্ষিণের জনগণও হিন্দির করছেন ট্রান্সলেটরের মাধ্যমে। যেমন প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান শোনার জন্য ট্রান্সলেটরের ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সুতরাং হিন্দি শিখে নেওয়াটা বিশেষ সমস্যার নয় বলেই মনে করছেন কিরণ বেদী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here