মহানগর ওয়েবডেস্ক: গতকালই জানিয়েছিলেন তিনি বিজেপি’তে যাচ্ছেন না। আজ আবার একই কথার পুনরাবৃত্তি করলেন রাজস্থানের উপ মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে অপসারিত বিদ্রোহী কংগ্রেস নেতা শচিন পাইলট। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস’কে তিনি জানিয়েছেন, ”আমি বিজেপি’তে যোগ দিচ্ছি না। যারা এই কথা বলছে তারা আমাকে গান্ধীদের চোখে ছোট করে দিতে চাইছে।” বিজেপির সঙ্গে যোগসাজশে রাজস্থানের কংগ্রেস সরকারকে তিনি বিপদে ফেলেছেন, এই অভিযোগও অস্বীকার করেন রাজস্থানের সদ্য প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

গতকাল উপ মুখ্যমন্ত্রী ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে তাকে অপসারিত করার পর শচিন জানিয়েছিলেন যে তিনি আজ সকাল ১০ টায় সাংবাদিক সম্মেলন করবেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সেই সম্মেলন তিনি বাতিল করে দেন। দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বিজেপি’তে যোগদান না করার ঘোষণা এবং সাংবাদিক সম্মেলন বাতিলের মধ্যে দিয়ে পাইলটের দিক থেকে কোনও বার্তা কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের প্রতি পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে কিনা সেই দিকেই নজর রাখছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

এখনও পর্যন্ত সোনিয়া বা রাহুল গান্ধীর সঙ্গে শচিন পাইলটের মুখোমুখি কোনও সাক্ষাৎকার ঘটেনি। কংগ্রেসের একাংশের অভিমত সোনিয়া–রাহুল গান্ধীর সঙ্গে শচিন পাইলটের কথা হলে সমস্যার সমাধানসূত্র বেরিয়ে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। সূত্রের খবর প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা’র সঙ্গে ফোনে কথা হলেও রাহুল বা সোনিয়া কেউই এখনও পর্যন্ত শচিনের সঙ্গে কথা বলেননি। জানা গিয়েছে, গত কাল এক দূত মারফত রাহুল পাইলটের সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করলেও তা প্রত্যাখ্যান করেন রাজস্থানের বিদ্রোহী নেতা।

রাজস্থানের ক্যাবিনেট থেকে শচিন পাইলট সহ আর যে দু’জন মন্ত্রীকে তাদের পদ থেকে অপসারিত করা হয়েছে তারা হলেন, খাদ্য ও গণ সরবরাহ মন্ত্রী রমেশ মিনা এবং পর্যটন মন্ত্রী বিশ্ববেন্দ্র সিং। যুব কংগ্রেস ও সেবাদলের সভাপতির পদ থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে মুকেশ ভাকর ও রাকেশ পারেখ’কে। দুজনেই রাজ্য রাজনীতিতে শচিন ঘনিষ্ট বলে পরিচিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here