মহানগর ডেস্ক: দেশীয় গবেষণায় তৈরি কোভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা নিয়ে অনেকদিন থেকেই মোদি সরকারকে সমালোচনায় বিদ্ধ করছিলেন বিরোধীরা। এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে সেই কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজটি নিয়ে মুখ বন্ধ করলেন সমালোচকদের। প্রধানমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পরেই দেশীয় কোভ্যাক্সিনের হয়ে সওয়াল করতে মাঠে নামলেন খোদ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। এমনকি সমস্ত বিরোধী দলের সাংসদ ও বিধায়কদেরও ভ্যাকসিন নেওয়ার আর্জি জানান তিনি!

সোমবার তিনি বলেন, ‘আমি শুরু থেকেই বলে আসছি যে কোভ্যাক্সিন এবং কোভিশিল্ড, দুটো টিকাই সম্পূর্ণ নিরাপদ এবং কার্যকরী।’ এর পরেই মোদির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী সর্বদা বলেন, অপরকে কিছু করতে বলার আগে নিজেকে করে দেখতে হয়। তিনি এদিন তা করে দেখালেন। দেশের ষাট ঊর্ধ্ব নাগরিকদের যখন টিকাকরণ শুরু হলো, প্রধানমন্ত্রী নিজেই প্রথম ডোজটি নিলেন।’ এরপরেই দেশীয় কোভ্যাক্সিনের ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘কোভ্যাক্সিন নিয়ে অনেকদিন ধরেই ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছিল। প্রধানমন্ত্রী নিজে সেই টিকা নিয়ে সমালোচকদের একহাতে নিলেন। দেশীয় টিকা কতটা নিরাপদ, তা নিয়ে দেশবাসীর কাছে বার্তা পাঠালেন তিনি।’

সোমবার টিকা নেওয়ার পরেই টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘এইমস-এ করোনা টিকার প্রথম ডোজটি নিলাম। এত কম সময়ের মধ্যে কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে চিকিৎসক ও গবেষকরা যেভাবে লড়াই করে যাচ্ছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়।’ এর পরেই করোনা মুক্ত ভারত গড়ার লক্ষ্যে তিনি দেশবাসীকে করোনার টিকা নেওয়ার জন্য আহ্বান জানান। উল্লেখ্য, এর পর ২৮শে মার্চ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজটি নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

 

প্রসঙ্গত, ১৬ই জানুয়ারি ভারতে শুরু হয়েছিল প্রথম পর্যায়ের টিকাকরণে। প্রথম দফায় দেশের স্বাস্থ্য কর্মী এবং প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের টিকা দেওয়া হয়েছিল। আজ থেকে দেশ জুড়ে শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় পর্যায়ের করোনা টিকাকরণ। ষাট বছরের ঊর্ধ্বে থাকা দেশের সমস্ত নাগরিককে করোনা প্রতিষেধক নেওয়ার জন্য আহ্বান জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এছাড়াও ৪৫-৬০ বছরের মধ্যে যারা দীর্ঘদিন ধরে রোগে ভুগছেন, তাঁদেরও করোনা টিকা নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। নিজের দল সহ সমস্ত বিরোধী দলের সাংসদ ও বিধায়কদেরও ভ্যাকসিন নেওয়ার আর্জি জানান তিনি। এমনকি আগামীকাল তিনি নিজেও ভ্যাকসিন নিতে পারেন বলে জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here