ডেস্ক: এ যেন নজিরবিহীন সন্ত্রাস৷ সমালোচকরা বলছেন, ৩৪ বছরের বাম জমানার সন্ত্রাসকে যেন চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে ৭ বছরের ‘মা-মাটি-মানুষ’এর সন্ত্রাস৷ অনেকে বলছেন, সিপিএমের ক্যাডাররা যদি ‘হার্মাদ’ হয়, তাহলে তৃণমূলীরা ‘জল্লাদ’! পঞ্চায়েত ভোটকে কেন্দ্র করে সকাল থেকে নজিরবিহীন সন্ত্রাস অতীতের সব রেকর্ডকে যেন ভেঙে দেওয়ার পণ করেছে৷ আর সেই ছবির লাইভ সম্প্রচার দেখলেন হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জোর্তিময় ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ৷ আদালতের এজলাসে বসেই জেলায় জেলায় ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসের ছবি দেখল প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ৷

সোমবার পঞ্চায়েত ভোটের দিন গোটা রাজ্যজুড়ে অশান্তি এবং প্রাণহানির খবরগুলিকে আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করান হাইকোর্টের বার কাউন্সিলের এক সদস্য। এরপরই মোবাইল ফোনের লাইভ টিভিতে রাজ্যের পরিস্থিতি দেখেন বিচারপতিরা। বার কাউন্সিলের ওই সদস্য যখন আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন, তখনও পর্যন্ত ৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে৷ পরে সেই সংখ্যা আরও বাড়ে৷ আইন-শৃঙ্খলা যে একেবারে ভেঙে পড়েছে দাবি করে বিচারপতিদের কাছে অভিযোগ জানান বার কাউন্সিলের জনৈক আইনজীবী। শুধু তাই নয়, স্বরাষ্ট্র সচিব ও নির্বাচন কমিশনকে তলবের আর্জিও জানান তিনি। আদালত অবশ্য স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে কাউকে তলব করতে চায় না। তবে কেউ যদি পঞ্চায়েত ভোটে সন্ত্রাস নিয়ে মামলা রুজু করতে চায়, তাহলে তাতে আদালতের সায় আছে।

উল্লেখ্য, এবার পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে শুরু থেকেই আইনি জটিলতা তৈরি হয়েছে৷ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে শুরু করে রাজ্য নির্বাচন কমিশন হাইকোর্ট থেকে শুরু করে সুপ্রিম কোর্টের দরজা পর্যন্ত নেড়েছেন৷ মামলাগুলির মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখ্যযোগ্য ছিল শাসকের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ ভোট৷ নির্বাচন কমিশন ও সরকারের পক্ষ থেকে আদালতকে রিপোর্ট দিয়ে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে আশ্বস্ত করা হয়৷ অবষেশে শর্ত সাপেক্ষে হাইকোর্ট জানিয়েছিল, ভোটের নিরাপত্তার সম্পূর্ণ দায়িত্ব নিতে হবে রাজ্য নির্বাচন কমিশন ও রাজ্য সরকারকে৷ এবং ভোটকে কেন্দ্র করে যদি কোনও ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটে তাহলে তার দায় বর্তাবে সংশ্লিষ্ট সরকারী আধিকারিকদের৷ এবং ক্ষতিপূরণের দায়িত্ব নিতে হবে সেইসব আধিকারিকদেরই৷ কোর্টের আরও নির্দেশ ছিল, ওই আধিকারিকদের বেতন কিংবা সম্পত্তি থেকে ক্ষতিপূরণ মেটাতে হবে৷ এবং রাজ্য সরকারকেও ক্ষতিপূরণের দায়িত্ব নিতে হবে৷ তারপর, এদিন আদালতের লাইভ টিভি সম্প্রচার দেখাকে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here