ডেস্ক: রাজ্যের ২৮ হাজার পুজো কমিটিকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে দায়ের হয় জনস্বার্থ মামলা। সেই অনুদানের ওপর স্থগিতাদেশের নির্দেশ আগেই দিয়েছিল হাইকোর্ট। এবার সেই অনুদানের উপর স্থগিতাদেশের মেয়াদ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাড়িয়ে দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

কোন মাপকাঠিতে ২৮ হাজার পুজো কমিটিকে আর্থিক অনুদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় শুনানির সময় এই নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি দেবাশিষ করগুপ্ত। জবাবে রাজ্যের তরফে অ্যাডভোকেট জেনারেল যুক্তি, অনুদান কে পাবে তা ঠিক করার অধিকার সরকারের। আদালত এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। এরপর ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী জানতে চান, অনুদান বিলির ক্ষেত্রে কোনও লিকেজ হচ্ছে না সব নিয়মানুযায়ী। এর ভিত্তিতে আবেদনকারীর তরফে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য দাবি করেন, পুজোর জন্য এই বরাদ্দ অসাংবিধানিক তার কারণ, ইমাম ভাতাও অসাংবিধানিক বলে রায় দিয়েছে আদালত। শুনানি-পাল্টা শুনানির পর এদিনের মতো মামলা স্থগিত হয়ে যায়। এরপরই স্থগিতাদেশের মেয়াদ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

প্রসঙ্গত, রাজ্যের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী শামিম আহমেদ। আদালতের কাছে শামিমের প্রশ্ন ছিল, রাজ্যপালের সম্মতি ছাড়া কোনও রকম বিজ্ঞপ্তি ছাড়া কিভাবে এই ঘোষণা করে রাজ্য সরকার ? এই সিদ্ধান্ত সংবিধান বিরোধী বলেও দাবি করা হয়। শুধু তাই নয়, রাজ্য কখনও কোনও সম্প্রদায়ের পৃষ্ঠপোষকতা করতে পারে না বলেও দাবি তোলেন তিনি। পুজোয় ২৮ কোটি টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে অযথা উত্তেজনা তৈরি করতে পারে। সরকারের এই সিদ্ধান্ত সংবিধানের ১৬৬ ধারার পরিপন্থী বলেও দাবি করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here