kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক:  বিজেপি সরকারের সময় যা হয়েছিল মদ্যপ্রদেশে কংগ্রেস প্রশাসনের সময় তা আর হল না৷শনিবার মধ্যপ্রদেশে আরতি করে নাথুরাম গডসের ফাঁসির দিন ‘বলিদান দিবস’ হিসেবে পালন করল হিন্দু মহাসভা৷ আর তা দাঁড়িয়ে দেখল প্রশাসন৷ নীরব থাকল৷ অথচ বিজেপির আমলে এই মহাসভা নাথুরামের মুর্তি নিয়ে এসে মন্দরি স্থাপন করতে চেয়েছিল৷ তখন কিন্তু মুর্তি পুলিশ বাজেয়াপ্ত করেছিল৷মন্দির স্থাপনেও বাধা দিয়েছিল৷ রামমন্দির সমর্থন থকে নাথুরামের পুজোকে নীরব সমর্থন জানিয়ে কংগ্রেস দেশজুড়ে কি বার্তা দিতে চাইছে? তবে কি কংগ্রেস ধীরে ধীরে বিজেপির মতো নরম ছেড়ে কট্টর হিন্দুত্বর দিকে ঝুঁকছ? মহারাষ্ট্রে হিন্দু মৌলবাদী শিবসেনার সহ্গে জোটের পর এখন রাজনৈতিক মহলে এটাই সবচেয়ে আলোচিত বিষয়৷

বরাবরই হিন্দু মৌলবাদী সংগঠন হিন্দু মহাসভা জাতির জনক মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসের অন্ধ সমর্থক৷ এই কট্টর সংগঠনের দাবি, গডসের বয়ানকে স্কুলশিক্ষার পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেওয়া হোক, যাতে তরুণ প্রজন্ম গডসের বাস্তবিক জাতীয়তাবাদী ধারণা সম্পর্কে জানতে পারেন।ওইদিন আরতি করে নাথুরাম গডসের ফাঁসির দিন ‘বলিদান দিবস’ হিসেবে পালন করল হিন্দু মহাসভা নাথুরাম ও নারায়ণের ছবিতে মালা দিয়ে, ভজন গেয়ে এবং আরতি করে ‘বলিদান দিবস’ হিসেবে পালিত হল মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসে এবং তার প্রধান সহযোগী নারায়ণ আপ্তের ফাঁসির ৭০ বছর পালন করা হল দৌলতগঞ্জের হিন্দু মহাসভার অফিসে। নাথুরাম ও নারায়ণের ছবিতে মালা দিয়ে, ভজন গেয়ে এবং আরতি করে ‘বলিদান দিবস’ হিসেবে পালিত হল এই দিন। হিন্দু মহাসভার শীর্ষ কর্মকর্তা জয়বীর ভরদ্বাজ বলেন, ‘এমনটা প্রথমবার নয়, আমরা এর আগেও নথুরাম গডসে এবং নারায়ণ আপ্তের হত্যার দিনটিকে বলিদান দিবস হিসেবে পালন করেছি।’

হিন্দু মহাসভার নেতারা স্থানীয় প্রশাসনের প্রতিনিধিদেরকে মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথের জন্য একটি দাবিপত্রও দেন। এই দাবিপত্রে চারটি দাবি রয়েছে। প্রথম দাবিটি হ’ল ট্রায়াল কোর্টের কাছে গডসের বয়ানকে স্কুলশিক্ষার পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেওয়া হোক, যাতে তরুণ প্রজন্ম গডসের বাস্তবিক জাতীয়তাবাদী ধারণা সম্পর্কে জানতে পারেন। দ্বিতীয় দাবিটি হ’ল, যেমন পন্ডিত জওহরলাল নেহরুর জন্মদিবস শিশু দিবস হিসাবে পালন করা হয়, তেমনই দশম শিখ গুরু গোবিন্দ সিংহের দুই পুত্রের মৃত্যুর দিনকে বাল শহিদ দিবস হিসেবে পালন করা হোক। তৃতীয় দাবিটি হ’ল নাথুরাম গডেসের মূর্তি, যা ২০১৭ সালে মহাসভার অফিস থেকে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন বাজেয়াপ্ত করে তা ফেরত দেওয়া হোক। চতুর্থ দাবি, জেএনইউ ক্যাম্পাসে স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তি যারা ভেঙেছে তাঁদের দেশদ্রোহী হিসেবে অভিযুক্ত করে গ্রেফতার করা হোক।তবে এই সময় মহাসভার কার্যালয়ের বাইরে স্থানীয় পুলিশ এবং প্রশাসনের লোক উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু তাঁরা পদক্ষেপ করার পরিবর্তে পুরো বিষয়টার অপেক্ষা করেন, দেখেন এবং ফিরে যান।মজার বিষয় হ’ল, দুই বছর আগে যখন বিজেপি ক্ষমতায় ছিল, মহাসভার কার্যকর্তারা গডসের মূর্তি স্থাপন করে কার্যালয়ের অভ্যন্তরে নাথুরাম গডসের মন্দির প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। তবে পুলিশ পরে সেই মূর্তি বাজেয়াপ্ত করে নেয়। গত ১১ মাস রাজ্যে কংগ্রেসে শাসন ক্ষমতায় রয়েছে, তবুও স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ শুক্রবারের এই ঘটনায় কোনও পদক্ষেপ করেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here