international news hosni

Highlights

  • মিশরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক প্রয়াত
  • রাজধানী কায়রোর হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়
  • আরব বসন্তের ধাক্কায় ২০১১ সালে ক্ষমতাচ্যুত হন মোবারক

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ক্ষমতাচ্যুত হওয়া মিশরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক প্রয়াত৷ মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানী কায়রোর হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়৷ বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। ‘আরব বসন্ত’-র ধাক্কায় ২০১১ সালে ১৮ দিনের তীব্র আন্দোলনের মুখে মোবারকের ৩০ বছরের কঠোর শাসনের অবসান ঘটে। পুরো আরব বিশ্ব কাঁপিয়ে তোলা ওই গণ-অভ্যুত্থানে গদি হারানো নেতাদের মধ্যে মোবারকই প্রথম, যাঁকে নানা অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে হয়েছে। ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার দুই মাস পর ২০১১ সালের এপ্রিলে গ্রেফতার হন হোসনি মোবারক। তখন থেকেই তিনি কারাগারে বন্দি ছিলেন। পরে অসুস্থ হয়ে পড়লে কড়া নিরাপত্তায় সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকেন। দীর্ঘ ছয় বছর কারাগারে রাখার পর তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়।

১৯৮১ সালে প্রথমবার মিশরের ক্ষমতায় আসেন হোসনি মোবারক। ২০১১ সালে ‘আরব বসন্ত’-র ঢেউ মিশরে আছড়ে পড়লে ক্ষমতাচ্যুত হন তিনি। ১৮ দিনের অভ্যুত্থানে ১১ ফেব্রুয়ারি ক্ষমতাচ্যুত হন মোবারক। কিন্তু অভ্যুত্থানের দিনগুলোতে তাঁর নির্দেশে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ২৩৯ জন বিক্ষোভকারী নিহত হন বলে আদালতে প্রমাণিত হয়। ফলে ২০১২ সালে নিম্ন আদালত তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়। তবে উচ্চ আদালতে বেকসুর খালাস পেলে ২০১৭ সালের মার্চে মুক্তি পান তিনি।

মিশরের সরকারি টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, কয়েক সপ্তাহ আগে হোসনি মোবারকের দেহে অস্ত্রোপচার করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাঁকে কায়রোর একটি সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার সেখানে মৃত্যু হয় তাঁর। ১৯২৮ সালে নীলনদ তীরের মনুফিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন হোসনি মুবারক। ১৯৪৯ সালে মিশরের বিমান বাহিনীতে যোগ দেন তিনি। ১৯৭২ সালে তিনি বিমান বাহিনীর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯৭৩ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের সময় মোবারক জাতীয় বীর হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। যুদ্ধের পর ১৯৭৫ সালে তাঁকে মিশরের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিয়োগ করেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আনোয়ার আল-সাদাত। ১৯৮১ সালে প্রেসিডেন্ট আনোয়ার আল-সাদাতের হত্যার পর তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট এয়ার চিফ মার্শাল হোসনি মোবারক প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here