মহানগর ওয়েবডেস্ক: ‘এভাবে মেহেবুবা মুফতিকে কতদিন আটকে রাখা যায়’, মঙ্গলবার কেন্দ্রশাসিত জম্মু কাশ্মীর প্রশাসনের উদ্দেশে এমন প্রশ্নই তুলে ধরল সুপ্রিম কোর্ট। জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর মেয়ের দায়ের করা একটি পিটিশনের শুনানি করতে গিয়েই এই প্রশ্ন তোলে আদালত।

নাগরিক নিরাপত্তার আইনে গত বছর ৫ অগাস্ট, যেদিন জম্মু কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করা হয়, সেদিন আটক করা হয়েছিল মেহেবুবা মুফতিকে। গ্রেফতার হয়ে তারপর থেকেই গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছেন তিনি। এরই মাঝে আদালতে একাধিকবার তাঁর মেয়ের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছে। নতুন করে আবেদনের এই শুনানিতে জম্মু কাশ্মীর প্রশাসনকে দুই সপ্তাহের সময় বেঁধে দিয়েছে আদালত। তাঁর আটকের সময়সীমা এক বছরের বেশি বাড়ানো হবে কিনা এবং এভাবে আটকে রাখা নিয়ে প্রশাসনের অবস্থান কী, সেটা জানতে চেয়েছেন বিচারপতিরা।

উল্লেখ্য, গত জুলাই মাসেই নাগরিক নিরাপত্তা আইনে মেহেবুবার আটকের মেয়াদ আরও তিন মাস বৃদ্ধি করা হয়েছিল। মঙ্গলবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হওয়া এই শুনানিতে বিচারপতি সঞ্জয় কিষাণ কৌলের বেঞ্চ জানতে চায়, ‘মেহেবুবা মুফতির গ্রেফতারি নিয়ে জম্মু কাশ্মীর প্রশাসনের কী প্রস্তাব রয়েছে?’ কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিনিধি সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা তখনই বিচারপতিদের কোনও পর্যবেক্ষণ প্রকাশ করতে না বলেন কারণ জম্মু কাশ্মীরে হিংসার ইতিহাস রয়েছে।

জবাবে বিচারপতি কৌল বলেন, ‘এই রাজ্যের ইতিহাস অভূতপূর্ব। কিন্তু যে কেউ বলে দেবে, প্রাথমিকভাবে আপনারা আটক করে রাখার সর্বোচ্চ সময় পার করে ফেলেছেন।’ প্রসঙ্গত, এই একই আইনে ওই একই সময়ে গ্রেফতার করা হয়েছিল জম্মু কাশ্মীরের আরও দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা ও ওমর আবদুল্লাকেও। সম্প্রতি তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। তবে একসময় বিজেপির জোট সঙ্গী পিডিপি নেত্রীকে এখনও ছাড়েনি কেন্দ্রশাসিত জম্মু কাশ্মীর প্রশাসন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here