ডেস্ক:শরীরের নানা অংশের তুলনায় ঠোঁটের অংশটি বেশি পাতলা এবং নরম হয়। যার জেরে আমাদের ঠোঁটের যত্নটা আরও বেশি করে নিতে হবে। আপনারা কেউ কি জানেন যে বলিরেখা শুধু মুখেই না ঠোঁটেও পড়ে? শুনে আশ্চর্য হলেন নিশ্চয়ই,বলিরেখার কারণে আমাদের ঠোঁটের সৌন্দর্যটাই হারিয়ে যায়। আমাদের ঠোঁটের রং স্বাভাবিকের তুলনায় কালো হওয়ার পিছনে রয়েছে আমাদেরই অসাবধনতা। অতিরিক্ত পরিমাণে ধূমপান করা,বাজে জিনিস ব্যবহার করা, ঠিক সময়ে না ঘুমানো,জেনেটিক অসুবিধে এই সমস্ত কারনেই আমাদের ঠোঁটের এই হল। তাই এবার আপনার ঠোঁটকে করে তুলুন সুন্দর, কিছু প্রাকৃতিক উপায়ে-

১) নারকেল তেল: নারকেল তেল যেমন চুলের জন্য ভাল তেমনি আমাদের ঠোঁটের জন্যও খুবই উপকারি। রোজ রাতে শোওয়ার আগে অল্প নারকেল তেল আপনার ঠোঁটের লাগিয়ে শুয়ে পড়ুন। দেখবেন আপনি উপকার পাবেন। এতে আপনার ঠোঁট ফাটাও বন্ধ হবে।

২) দারুচিনি:আমরা যেমন মুখে স্ক্রাব করি তেমনি আমাদের ঠোঁটেরও স্ক্রাবের দরকার হয়। তাই একটি পাত্রে ১/২ চামচ দারুচিনি ও ১/২ গোলাপ জল নিন। দুটো মিশ্রণকে ভাল করে মিশিয়ে ঠোঁটে স্ক্রাব করুন। ২ মিনিট স্ক্রাব করার পর তা ভাল করে ধুয়ে নিন। এরপর লিপবাম লাগিয়ে নিজের কাজ করুন। দারুচিনি ঠোঁটের ড্রাইনেসকে দূর করবে এবং গোলাপ জল ঠোঁটকে নরম করবে।

৩) মধু: রাতে শোওয়ার আগে অল্প মধু লাগিয়ে রাখুন। মধু কিন্তু ঠোঁটের বলিরেখাকে দূর করবে।

৪) ভিটামিন-ই ক্যাপস্যুল: এই ভিটামিন -ই ক্যাপসুল আপনারা যে কোনও ম্যাডিকেল থেকে কিনে নিতে পারবেন। আপনি ভিটামিন- ক্যাপস্যুল থেকে তেল বার করে নিন। এই তেলটিকে আপনি ঠোঁটে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন।

৫) বীটের রস: বীটের রস কিন্তু ঠোঁটকে প্রাকৃতিক ভাবে গোলাপি করতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে ঠোঁটের ময়েশ্চারও বজায় রাখতে সাহায্য করে।

৬) আমন্ড ওয়েল এবং চিনি গুঁড়ো: ঠোঁট ফাটা এবং ঠোঁটের কালো ভাগকে দূর করার জন্য আপনি আমন্ড ওয়েল ও ক্রাশ সুগারের পেস্টটি ঠোঁটে লাগাতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here