নিজস্ব প্রতিবেদক, মালদা: বিরোধী শিবিরে ফের ভাঙন৷ ভোটের মুখে বিজেপি ও সিপিএম ছেড়ে শাসকদলে নাম লেখালেন এই দুই শিবিরের শতাধিক কর্মী সমর্থক৷ সোমবার মালদা শহরের নুর ম্যানশনে দলে যোগদানকারী সমর্থকদের হাতে তৃণমূলের দলীয় পতাকা তুলে দেন উত্তর মালদার তৃণমূল প্রার্থী মৌসম বেনজির নুর। লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি ও সিপিএমে বড়সড় ফাটল ধরালো তৃণমূল কংগ্রেস। আর যার ফলে জেলায় শক্তি বৃদ্ধি পেল শাসকদলের।

তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদানের পর তৃণমূল সুপ্রিমো উত্তর মালদার প্রার্থী ঘোষণা করেন মৌসম বেনজির নূরকে। এরপর থেকে উত্তরের কংগ্রেস ঘর ভাঙতে শুরু করেন মৌসম। আর এবার বিজেপি ও সিপিএমেও সেই ভাঙ্গন অব্যাহত। সেখানকার সিপিএমের প্রাক্তন প্রধান তথা বর্তমান মেম্বার মনোজ অধিকারী সহ শতাধিক বিজেপি কর্মী সমর্থক তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। মনোজ অধিকারী বলেন, কুশিদা অঞ্চলে সিপিএম ও বিজেপি কোনও উন্নয়ণ করেনি। ফলে পিছিয়ে পড়ছে এই অঞ্চল। আর যার ফলে গ্রামের রাস্তাঘাট ও পানীয় জলের সমস্যা থেকেই যাচ্ছে। আমরা চাই উন্নয়ণ হোক। গ্রামের মানুষের স্বার্থে আমরা এদিন তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছি। উত্তর মালদা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মৌসম বলেন, এতদিন কংগ্রেস থেকে বহু কর্মী-সমর্থক তৃণমূলে এসেছে।

 

এবার সিপিএম-বিজেপি থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করতে কর্মী সর্মথকরা তৃণমূলে যোগ দিল। স্বাভাবিকভাবে লোকসভা নির্বাচনের আগে এই যোগদানের ফলে জেলায় তৃণমূল কংগ্রেস আরও শক্তিশালী হলো। আগামী দিনে অনেকেই আমাদের দলে যোগদান করবে। জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক অজয় গাঙ্গুলি বলেন, আমাদের দলের কেউ তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেনি। মিথ্যা প্রচার করছে তৃণমূল কংগ্রেস। মানুষ সব দেখছে এর জবাব ভোটবাক্সে দেবে।
জেলা সিপিএম-এর সম্পাদক অম্বর মিত্র বলেন, এদের কোন দাম নেই। লোকসভা ভোটের আগে দলবদলের চিত্র দেখা যায়। এগুলো দেখিয়ে শাসক দল বাজারে একটা হাওয়া তোলার চেষ্টা করছেন। এতে কোনও লাভ নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here