নিজস্ব প্রতিবেদক, বর্ধমান: গত বুধবার বর্ধমান জেলা প্রশাসনের উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, বর্ধমান শহরের যানজট মোকাবিলায় অনুমোদন প্রাপ্ত ২৭০০ ইকো রিক্সা বা টোটোর বাইরে শহরে আর কোন টোটো চালাতে দেওয়া হবে না। এমনকি শহরের বাইরের এলাকা থেকেও অনুমোদনহীন টোটো শহরে ঢুকতে দেওয়া হবে না। সেই সঙ্গে অনুমোদন পাওয়া ২৭০০ টোটোকে দিন ও রাতে ভাগ করে নির্দিষ্ট রুটে চালানোর অনুমোদন দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে তাদের ধাপে ধাপে অস্থায়ী পরিচয় নাম্বার দেওয়ার কাজও শুরু করা হবে। কিন্তু জেলা প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের জেরেই কার্যত মাথায় হাত পড়েছে শহরের বুকে চলা ও বাইরের এলাকা থেকে শহরে আসা আরও প্রায় ৩০০০ টোটো চালকদের। তারা এবার প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রীতিমত সংগঠিত আন্দোলন করার পথে হাঁটার ইঙ্গিত দিলেন।

জানা গিয়েছে, বর্ধমান শহরে এখন প্রায় ৬০০০ টোটো চলাচল করে। তার জেরে শহরের ভিতর দিয়ে যাওয়া জিটি রোড, কাটোয়া রোড, কালনা রোড কার্যত যানজটে আটকে হাঁসফাঁস করে। এই যানযট কমাতেই গত বুধবার পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসনের তরফে বৈঠক ডাকা হয়েছিল। তারপরেই প্রশাসনের তরফে জেলা শাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানান, আগামী ১৫ আগষ্ট থেকে বর্ধমান শহরের পুরসভা ও পরিবহণ নির্দিষ্ট মোট ২৭০০ ইকো রিক্সা ছাড়া অন্য কোনো ইকো রিক্সা চলতে দেওয়া হবে না। ওইদিন তিনি এটাও জানান যে, শহরে আসা বা চলাচল করা অনুমোদনহীন ইকো রিক্সাগুলির বিরুদ্ধে আগামী কয়েকদি%