ডেস্ক: বিশ্বকাপ ফাইনাল মানেই নস্টালজিক একটা ব্যাপার৷ কেউ হাসে, কেউ কাঁদে৷ কেউ রাতারাতি নায়ক হয়ে যায় তো, কেউ স্বপ্নের নায়ক থেকে হয়ে যায় ভিলেন৷ তৈরি হয় নতুন ইতিহাস।পুরোনো ইতিহাসও অনুপ্রাণিত করতে পারে কখনও কখনও। ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেওয়ার এই লড়াইয়ের আগে বিশ্বকাপের ফাইনাল নিয়ে কয়েকটি চমকপ্রদ তথ্য, যা আপনাকে জানতেই হবে।

(১) নিজেদের দেশের ফুটবল ইতিহাসে এই তৃতীয়বারের জন্য বিশ্বকাপ ফাইনালে আজ মাঠে নামবে ফ্রান্স। অন্যদিকে, প্রথমবারের জন্য বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে ইতিহাস তৈরি করেছে ক্রোয়েশিয়া৷

(২) এই নিয়ে ২০টি বিশ্বকাপের ফাইনালের মধ্যে নবমবারের মতো বিশ্বকাপ ফাইনাল ‘অল ইউরোপিয়ান’৷ অর্থাৎ, দুটি ফাইনালিস্ট দলই ইউরোপের।

১৯৩৪ সালে অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে চেকোস্লোভাকিয়াকে ২-১ গোলে হারায় ইতালি।
১৯৩৮ সালে হাঙ্গেরিকে ৪-২ গোলে হারায় ইতালি।
১৯৫৪ সালে হাঙ্গেরিকে ৩-২ গোলে হারায় পশ্চিম জার্মানি।
১৯৬৬ সালে অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে পশ্চিম জার্মানিকে ৪-২ গোলে হারায় ইংল্যান্ড।
১৯৭৪ সালে নেদারল্যান্ডসকে ২-১ গোলে হারায় পশ্চিম জার্মানি।
১৯৮২ সালে পশ্চিম জার্মানিকে ৩-১ গোলে হারায় ইতালি।
২০০৬ সালে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে ৫-৩ গোলে হারায় ইতালি। অতিরিক্ত সময়ের পর ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র ছিল।
২০১০ সালে অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে ১-০ গোলে হারায় স্পেন।
২০১৮ সালে রাশিয়ার বিশ্বকাপের ফের একবার ‘অল ইউরোপিয়ান’ফাইনাল ম্যাচের সাক্ষী হতে চলেছে৷

(৩) ফের একবার ফুটবল সম্রাট পেলেকে ছোঁয়ার হাতছানি রয়েছে ফরাসি স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপের সামনে। অনূর্ধ্ব-২০ কোনও ফুটবলার হিসেবে এর আগে বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল আছে একমাত্র ব্রাজিলিয়ান তারকাই, ১৯৫৮ সালে সুইডেনের বিরুদ্ধে।

(৪) ব্রাজিলের মারিও জাগালো ও জার্মানির ফ্রাঞ্চ বেকেনবাওয়ারের পাশে নিজের নাম বসানোর দারুণ একটা সুযোগ রয়েছে ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশমের। খেলোয়াড় ও কোচ—এই দুই ভূমিকাতেই বিশ্বকাপ জিতেছেন কেবলমাত্র জাগালো ও বেকেনবাওয়ার। দেশম ১৯৯৮ বিশ্বকাপে নিজেদের দেশের মাটিতে খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছিলেন৷ ২০ বছর বাজে ফের বিশ্বজেয়র সুযোগ রয়েছে ফরাসি এই প্রাক্তন মিডফিল্ডারের সামনে৷ তবে এবার জাতীয় দলের কোচ হিসেবে৷

প্রাক্তন ব্রাজিলিয়ান তারকা উইঙ্গার মারিও জাগালো খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপ জিতেছিলেন ১৯৫৮ ও ১৯৬২ সালে৷ আর কোচ হিসেবে সেই স্বাদ পেয়েছেন ১৯৭০ সালে হেড কোচ হিসেবে৷ এবং ১৯৯৪ সালে সরকারী কোচ হিসেবে৷ অন্যদিকে, জার্মান কিংবদন্তি ফ্রাঞ্চ বেকেনবাওয়ার ১৯৭৪ সালে তৎকালীন পশ্চিন জার্মানির হয়ে বিশ্বকাপ জিতেছিলেন৷ আর কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জিতেছেন ১৯৯০ সালে৷

(৫) সর্বশেষ যে দুবার নতুন কোনও দল ফাইনালে উঠেছে, তারাই বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছে । আর এই তথ্যে অনুপ্রাণিত হতে পারে ক্রোয়েশিয়া। ১৯৯৮ সালে ফ্রান্স আর ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল স্পেন।

(৬) আজকের রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটি বিশ্বকাপ ইতিহাসের একটি মাইলস্টোন হতে চলেছে৷ মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামএর এই ফাইনাল ৯০০তম বিশ্বকাপ ম্যাচের সাক্ষী হতে চলেছে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here