corona india

মহানগর ডেস্ক: গত সপ্তাহের রবিবারই উদ্ধব ঠাকরের সরকার নাইট কারফিউয়ের পাশাপাশি সপ্তাহের শেষ দুই দিন লকডাউন ঘোষণা করেছিল। সপ্তাহের শেষ দুই দিনের লকডাউনের আজকেই ছিল প্রথম দিন। লকডাউনের প্রথম দিনে মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরের পাশাপাশি মুম্বইয়ের রাস্তা ছিল শুনশান। মুম্বই পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় ব্যারিকেড করে রেখেছে। বৃহন্মুব্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন শুধু করোনা ভ্যাকসিন নিতে যাওয়ার জন্য অনুমতি দিয়েছে। পাশাপাশি জরুরি পরিষেবা চালু করা আছে। অন্য দিকে, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে শনিবার সর্বদলীয় বৈঠক করেছেন। মহারাষ্ট্রে ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতি রোধ করতেই এই বৈঠকে বসছেন বলে জানানো হয়েছে।

পাশাপাশি দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জানিয়েছেন, করোনার সংক্রমণে রাজধানীর অবস্থা ভয়াবহ। বেশ কিছু কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হতে পারে। তবে দিল্লি জুড়ে সম্পূর্ণ লকডাউনের কোনও রকম পরিকল্পনা নেই। একটি সাংবাদিক সম্মেলনে কেজরিওয়াল বলেছেন, চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে কোনও সম্ভাবনা নেই। হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত শয্যা ও ভেন্টিলেটর রয়েছে। করোনা সংক্রমণ রোধ করতে বেশ কিছু বিধি নিষেধ জারি করা হয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে নয়া বিধি-নিষেধের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। তবে এখনও দিল্লি জুড়ে সম্পূর্ণ লকডাউনের কোনও পরিকল্পনা নেই বলে জানানো হয়েছে।

দেশে করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সারা দেশ জুড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় এক লক্ষ ৪৫ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। করোনায় মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৭৯৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশে সব থেকে বেশি আক্রান্ত হয়েছে মহারাষ্ট্রে। দেশে করোনায় সংক্রমণ বাড়ার পাশাপাশি করোনার টিকা করণ চলছে। দেশে ৯.৭৮ কোটি করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। দিল্লিতে সমস্ত স্কুল, কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। সোমবার থেকে মধ্যপ্রদেশের বেশ কিছু জায়গায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। বেশ কিছু জায়গায় নাইট কারফিউ জারি করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here