disha ravi

মহানগর ডেস্ক: দিশা রবিকে একদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিল দিল্লির আদালত। এর আগে তিন দিন বিচারবিভাগীয় হেফাজতে ছিলেন তিনি। মেয়াদ শেষ হলে পুলিশ তাঁকে আদালতে পেশ করে। যেখানে আরও একদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়। দিল্লি পুলিশ দিশার পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতের আবেদন করেছিল।

এর আগে শনিবার দিশাকে আদালতে পেশ করা হয়। দিশা জামিনের আবেদন করেন। সেই আবেদনের শুনানি মঙ্গলবার হবে। টুলকিট মামলায় আরও দুই অভিযুক্ত আইনজীবী নিকিতা জেকব ও শান্তনু মুলুকের জামিন হয়ে গিয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত তিনজনকে একসঙ্গে বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইছে।

আদালতে দিশা বলেন, টুলকিট ছিল একটি রিসোর্স ডকুমেন্ট। এই ডকুমেন্টের মাধ্যমে পাঠক কৃষক আন্দোলনের নানা তথ্য পাওয়া যাবে। দিল্লি পুলিশ দিশা রবির জামিনের বিরোধিতা করে বলেন, ওই টুলকিটের বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইডের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে, যেখানে ভারত সরকারের পাশাপাশি ভারতীয় সেনাবাহিনীর নিন্দা করা হয়েছে। পাশাপাশি দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, তদন্ত একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। জামিন পেলে দিশা রবি অনেক প্রমাণ নষ্ট করে দিতে পারেন। ইতিমধ্যে টুলকিট থেকে অনেক তথ্য সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। দিশা দিল্লি পুলিশকে সাহায্য করছে না। পাশাপাশি তিনি বলেন, ২২ বছরের দিশা রবির সঙ্গে খালিস্তানি সংগঠন পোয়েটিক জাস্টিস ফাউন্ডেশনের যোগাযোগ রয়েছে।

বিচারক ধর্মেন্দ্র রানা প্রশ্ন তোলেন, অবাঞ্ছিত কোনও ব্যক্তির সঙ্গে দেখা করার অর্থ সবসময় খারাপ উদ্দেশ্য নয়। এরপরেই ২৬ জানুয়ারি হিংসার ঘটনায় দিশা রবি কীভাবে যুক্ত ছিলেন সেই বিষয়ে দিল্লি পুলিশকে আদালত প্রশ্ন করে। প্রত্যুত্তরে দিল্লি পুলিশ জানায়, টুলকিট থেকে কেউ উত্তেজিত হয়ে হিংসার ঘটনা ঘটাতে পারে। এরপরে দিল্লি পুলিশকে টুলকিটে কি ছিল, তা দেখানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। সেই তথ্য কীভাবে হিংসার প্ররোচনা দিতে পারে, তা বিস্তারিত ব্যাখাও দিতে বলেন বিচারক ধর্মেন্দ্র রানা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here