বাংলাদেশকে নিয়ে ছেলেখেলা করে এক ইনিংস ও ১৩০ রানে প্রথম টেস্ট জয় ভারতের

0
kolkata bengali news

 

বাংলাদেশ- ১৫০ ও ২১৩    ভারত- ৪৯৩/৬ ডিঃ 

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট ম্যাচের তৃতীয় দিনেও অসাধারণ পারফরম্যান্স ভারতীয় বোলারদের। শামি, ইশান্ত ও উমেশকে নিয়ে গঠিত ভারতীয় পেস অ্যাটাক ও সঙ্গে অশ্বিন-জাদেজার স্পিনের ভেল্কিতে তৃতীয় দিনেই হার পদ্মাপাড়ের টাইগার্সরা। তাও আবার এক ইনিংস ও ১৩০ রানে। বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম ছাড়া আর কেউই ভারতীয় বোলারদের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি।

দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪৩ রানের বোঝা মাথায় নিয়ে খেলতে নেমে স্বাভাবিক ঢঙয়েই ভেঙে পরে বাংলাদেশী টপ অর্ডার। সকালের তরতাজা পিচে বল হাতে যা সুইং করাতে শুরু করলেন ইশান্ত ও উমেশ, তা খেলতে বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদেরও কালঘাম ছুটে যেত। স্বভাবতই অনভিজ্ঞ শাদমান ইসলাম ও ইমরুল কায়েস বেশিক্ষন স্থায়ী হতে পারেননি। দুজনেই ছয় রান করে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন। ইসলামকে ফেরান ইশান্ত ও কায়েস ঘাতক উমেশ।

এরপর আসরে নামেন মহম্মদ শামি। তিনি আসায় আরও ল্যাজেগোবরে অবস্থা হয় বাংলাদেশের। বঙ্গ পেসারের দুরন্ত গতি ও অনন্য সুইংয়ে তখন চোখে সর্ষেফুল দেখছেন মমিনুল, মিঠুন, মুশফিকুররা। একে একে শামির গোলাগুলিতে ‘শহিদ’ হন বাংলাদেশী অধিনায়ক মমিনুল (৭), মহম্মদ মিঠুন (১৮)। শামির বলে আবার মুশফিকুরের ক্যাচ স্লিপে ফেলে দেন রোহিত। জীবনদান পেয়ে অবশ্য একাই বেশ লড়াই করেন বাংলাদেশের ‘লিটল মাস্টার’। ৬৪ রান করে অশ্বিনের শিকার হন তিনি। তবে মহমুদুল্লার (১৫) ক্যাচ নিয়ে কিছু পরেই পাপস্খলন করেন রোহিত।

ভারতের জয়ের জন্য অপেক্ষা আরও কিছুটা বিলম্বিত করার কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন লিটন দাস (৩৫), মেহেদী হাসানরা (৩৮)। যদিও প্রথমে পেসার ত্রয় ও বেলাশেষে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ভেল্কিতে তৃতীয় দিন শেষ হওয়ার আগেই কুপোকাত হয়ে যায় বাংলাদেশ। ২১৩ রানে শেষ হয় তাদের দ্বিতীয় ইনিংস। ভারতের হয়ে ৪টি উইকেট নেন মহম্মদ শামি। তিন উইকেট অশ্বিনের। দুটি উইকেট নেন উমেশ ও একটি ইশান্ত শর্মা। এই টেস্ট তিন দিনে শেষ হয়ে যাওয়ায় কলকাতার ক্রিকেটপ্রেমীদের (যারা ইডেনে চতুর্থ দিনের টিকিট কেটেছিলেন) একটাই শঙ্কা, ইডেন টেস্ট চতুর্থ দিন পর্যন্ত যাবে তো?

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here