kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: তৃতীয় দিন শেষ হওয়ার পরেই ছবিটা বেশ স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। প্রশ্ন ছিল একটাই, চতুর্থ দিন কত তাড়াতাড়ি শেষ হবে খেলা? ধারাভাষ্য দিতে আসা প্রাক্তন প্রোটিয়া ক্যাপ্টেন গ্রেম স্মিথ অবশ্য বাজি ধরেছিলেন বাকি দুই উইকেট পেতে অন্তত ১২ ওভার লাগবে ভারতের। কিন্তু সেখানেও হতাশ হলেন তিনি। খেলার শুরুর পর মাত্র দুই ওভারের মধ্যেই ১৩৩ রানে গুটিয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। এক ইনিংস ও ২০২ রানে ম্যাচ জিতে বিপক্ষকে হোয়াইট ওয়াশ বিরাট বাহিনীর। এটাই আবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় ব্যবধানে টেস্ট জয় ভারতের।

টেস্টের শুরুতে টসে জিতে ব্যাট করেছিল ভারত। রোহিত শর্মার দ্বিশতরান ও অজিঙ্কা রাহানের শতরানে ভর করে প্রথম ইনিংসে ৪৯৭/৯ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে দেয় ভারত। এরপর ব্যাট করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যানদের নিয়ে রীতিমত ছেলে খেলা করেন ভারতীয় বোলাররা। আট উইকেট ও ৯ রান পুঁজি নিয়ে তৃতীয় দিন ব্যাট কোর্টে নামেন হামজা ও ডু’প্লেসি। কিন্তু সকালে প্রথম ঘণ্টাতেই উমেশের বল নাড়িয়ে দেয় ফাফের (১) উইকেট। যদিও এরপর কিছুটা প্রতিরোধ গড়েন বাভুমা ও হামজা। দুইজনে মিলে ৯১ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন। এরপরেই স্পিনারদের নিয়ে আসেন কোহলি, আর তাতেই কেল্লা ফতেহ। জাদেজা ও নাদিমের ঘূর্ণিতে বোকা বনে ফিরে যান হামজা (৬২), বাভুমা (৩২), ক্লাসেন (৬)। শেষদিকে জর্জ লিন্ডে বেশ একটু লড়াই করলেও ৩৭ রানে তাঁকে ফেরান উমেশ। এরপর রাবাডা (০), পিডেট (৪) নর্থজে (৪) শুধু আয়ারাম গ্যায়ারাম। ৫৭ তম ওভারে ১৬২ রানেই শেষ হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস। ভারতের হয়ে তিন উইকেট উমেশের, দুটি করে উইকেট শামি, নাদিম ও জাদেজার।

৩৩৫ রানের বিশাল লিড থাকায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফলো অন করানোর সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। দ্বিতীয় ইনিংসে যেন আরও নড়বড়ে দেখায় ডু-প্লেসিদের। দুপুরে ব্যাট করতে নেমে বিকেলের মধ্যেই ৮ উইকেট খুইয়ে বসেন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা। একটা সময় তো মনে হচ্ছিল চতুর্থ দিন পর্যন্ত খেলাই গড়াবে না। টেল এন্ডারদের জন্য খেলা গড়ায় চতুর্থ দিন। দ্বিতীয় ইনিংসে বরাবরের মতোই নতুন বল হাতে পেয়ে ঝলসে ওঠেন মহম্মদ শামি। মাত্র ১০ রান দিয়ে তিন উইকেট তুলে নেন। নতুন বলের পালিশ কাজে লাগিয়ে উমেশও দু’টি উইকেট পান। রবীন্দ্র জাদেজা ও আর অশ্বিন নেন একটি করে উইকেট। নাদিম শেষদিনে নেন দুই উইকেট।

চতুর্থ দিন ব্যাট করতে নামেন ডে ব্রুইন ও নর্থজে। শামির প্রথম ওভার কোনও রকমে সামলে নিলেও নাদিমের দ্বিতীয় ওভারে শেষ হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ওভারের পঞ্চম বলে ঋদ্ধিমানের দুর্দান্ত ক্যাচে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ডে ব্রুইন (৩০)। এরপরের বলেই নাদিমকে মারতে গিয়ে বল সোজা নর্থজের হাতে মেরে বসেন লুঙ্গি। রিবাউন্ড বল খুব সহজে তালুবন্দি করে ম্যাচ শেষ করেন শাহবাজ। এই ম্যাচেও জয়ের ফলে ২৪০ পয়েন্ট নিয়ে টেস্ট বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলে এক নম্বর স্থান আরও পাকা করল বিরাট অ্যান্ড কোং।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here