kolkata bengali news

ডেস্ক: পাকিস্তানে এয়ারস্ট্রাইক করার পর জঙ্গি নিকেশ নিয়ে মুখ খুলে চরমভাবেই বিতর্কে পড়েছেন সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। দলের বা সেনার তরফে জঙ্গি নিকেশের সংখ্যা নিয়ে কোনও প্রসঙ্গ না তুললেও অমিত শাহ মন্তব্য করেন যে ২৫০ জন জঙ্গি নিকেশ করা গেছে। সেই নিয়ে জল্পনা স্বভাবতই তুঙ্গে। অন্যদিকে, বিজেপির বিরুদ্ধে সেনা-জওয়ান নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা, যা বরাবরই বিজেপি অস্বীকার করেছে। কিন্তু বিজেপি নেতৃত্ব যেভাবে এয়ারস্ট্রাইক নিয়ে প্রচার করছে তাতে রাজনীতিটাই সামনে আসে। মূলত অমিত শাহের নয়া মন্তব্য সেই দিকেই ইঙ্গিত দিচ্ছে।

এয়ারস্ট্রাইককে হাতিয়ার করে অমিত শাহ ঝাড়খণ্ডে এক দলীয় সভায় বলেন, পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় সেনাবাহিনী বদলা নিয়েছে। শত্রুদেশে ঢুকে জঙ্গিঘাঁটি ধ্বংস করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইজরায়েলের পর ভারতই তৃতীয় দেশ যারা অন্যদেশের মাটিতে নেমে ধ্বংস করেছে জঙ্গিঘাঁটি। তিনি দাবি করেন, মোদী সরকারের কূটনৈতিক সাফল্যের কারণেই বায়ুসেনা পাইলট ফিরে এসেছেন। এই বলে তিনি বিজেপির হয়ে ভোটও চেয়েছেন অমিত শাহ। জানিয়েছেন, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে যদি বিজেপিকে ভোট না দেওয়া হয়, তবে দেশ অনেক পিছিয়ে পড়বে। বিজেপি ক্ষমতায় এলেই আগামী ৫ বছরে ভারত সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ হয়ে উঠবে।

প্রসঙ্গত, জঙ্গি নিধনের সংখ্যা সর্বসমক্ষে আনেন বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। আর তারপর থেকেই বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠেন তিনি। বিশিষ্ট মহলের দাবি, বিজেপির এই শীর্ষ নেতৃত্ব নিজের দলেই ‘ব্রাত্য’ হয়ে গিয়েছেন। গুজরাতের এক জনসভায় দাঁড়িয়ে শাহ দাবি করেন যে, বায়ুসেনার এই অভিযানে প্রায় ২৫০ জন জঙ্গি নিহত হয়েছে। তার এই সংখ্যা নিয়েই তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। সকল বিরোধীদের এক প্রশ্ন যে, যেখানে প্রধানমন্ত্রী চুপ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী চুপ, এমনকি বায়ুসেনা অবধি বলছে যে নিহত জঙ্গিদের দেহ গোনা তাদের কাজ নয়। সেখানে দাঁড়িয়ে সরকারের না বলা তথ্য অমিত শাহ জানলেন কী করে? শুধু বিরোধীরা নয়, শরিক দল শিবসেনারও একই প্রশ্ন যে, সেনার এই অভিযানে কতজন জঙ্গি নিহত হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here