ডেস্ক: ভারতের মহিলারাই নাকি সবথেকে অসুরক্ষিত! এমনই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে সম্প্রতি প্রকাশিত এক রিপোর্টে। সেখানে দেখানো হয়েছে মহিলাদের জন্য অন্যতম বিপজ্জনক দেশ হল ভারত। এখানে মহিলারা প্রতি মুহুর্তে নানা ভাবে শোষিত ও নির্যাতিত হন। যার ফলে একেবারেই নিরাপদ নন মহিলারা।

বিশেষজ্ঞ মহল বলছেন বিপজ্জনক তালিকায় ভারত ধীরে ধীরে উপরে এসে পৌঁছেছে। যা একেবারেই কাম্য নয়। এই নারী নির্যাতনের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য সরকারের তরফে সেরকম কোন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। যার ফলেই দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে এই অত্যাচারের পরিমাণ। নাবালিকাদের জোর করে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে, নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে কন্যা ভ্রুণ। এমনকি বিশেষজ্ঞরা ২০১২ সালের চলন্ত বাসে দিল্লির নির্ভয়া গণধর্ষণ কাণ্ডের প্রসঙ্গ তুলে বলেন, দোষীদের এই ঘটনায় সেরকম কোনও দৃষ্টান্তমূলক সাজা দেওয়া হয়নি। যার দরুন দোষীদের ভয় কমে যাচ্ছে, বাড়ছে অপরাধের পরিমাণ। ভারতের মতো দেশে মহিলাদের ঘরে বাইরে সম্মান দেওয়া হচ্ছেনা, প্রতি মুহুর্তে বাবা, কাকা, স্বামী শ্বশুর কাছে অত্যাচারিত হচ্ছে প্রতি মুহুর্তে। ২০১৬ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে নারী নির্যাতনের পরিমাণ আগের থেকে বেড়েছে ৮৩ শতাংশ। প্রতি ঘণ্টায় গড়ে ৪ জন মহিলা রোজ ধর্ষিতা হন এমন এক চাঞ্চল্যকর তথ্যও জানা গেছে এই সমীক্ষায়। যা অত্যন্ত নিরাশাজনক। ২০১১-র সমীক্ষা অনুযায়ী মহিলাদের জন্য সব থেকে অসুরক্ষিত দেশ ছিল আফগানিস্তান। তারপর ছিল কঙ্গো পাকিস্তান ভারত ও সোমালিয়া।

রাষ্ট্রপুঞ্জের ১৯৩ টি সদস্য দেশের মধ্যে চালানো হয়েছিল এই সমীক্ষা। তাদের রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছে প্রশ্ন করা হয়েছিল, স্বাস্থ্য, অর্থনীতি, নারী পাচার এবং মহিলাদের উপর যৌন অত্যাচারের নিরিখে কোন দেশ এগিয়ে আছে এরকম কিছু বিষয়। এছাড়াও এই দেশগুলির বাসিন্দাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলে বা ফোন করে রিপোর্ট সংগ্রহ করা হয়েছে। যার নিরিখেই প্রকাশ করা হয়েছে এই সমীক্ষার রিপোর্ট। তবে কেন্দ্রীয় শিশু সুরক্ষা মন্ত্রক এই নিয়ে এখনও কোন মন্তব্য করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here