ডেস্ক: পুলওয়ামা হামলা এবং বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনার হামলা এই দুই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। কিন্তু এসবের মাঝেই একটা চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এল সকলের সামনে। জানা যাচ্ছে, গত ২৭ ফেব্রুয়ারি এই দুই দেশই ক্ষেপণাস্ত্র হানার মুখোমুখি এসে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু মধ্যস্থতাকারীরা সেই সময়ে ভারতীয় বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে নিয়ে ইমরান খানকে ভালোভাবে বোঝানোয় এই যুদ্ধ নাকি ঠেকানো গিয়েছিল।

পাক যুদ্ধবিমান ধ্বংস করতে গিয়ে শত্রু দেশের হাতে বন্দি হয়েছিলেন উইং কম্যান্ডর অভিনন্দন। তবে প্রায় ৫৬ ঘণ্টার পর তাঁকে আবারও একবার ভারতের হাতে তুলে দিয়ে শান্তির বার্তা দেয় পাক সরকার। অভিনন্দনকে ফিরিয়ে দিয়ে এমনই বার্তা ছিল প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের। এমনকি এই ঘটনার পর তাঁকে নোবেল দেওয়ার দাবিও তোলা হয়। অভিনন্দনকে আটক করার পর পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিয়েছিল ভারত। সূত্রের খবর, অভিনন্দনের মুক্তির জন্য ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর সেক্রেটারি অনিল ধাসমানা পাকিস্তানে আইএসআই-এর প্রধান লেফট্যানেন্ট অসীম মুনিরের সঙ্গে কথা বলেন। এর পাশাপাশি অভিনন্দনের যদি কোনও ক্ষতি হয় তাহলে তা পাকিস্তানের পক্ষে মোটেই সুখকর হবে না বলেও কড়া বার্তা দেন তিনি।

 

যখন ‘র’ পাকিস্তানের সঙ্গে কথা বলতে ব্যস্ত, ঠিক তখন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল আমেরিকার নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন এবং সেক্রেটারি অফ স্টেট মাইক পম্পেও-র সঙ্গে কথা বলেছিলেন। অজিত তাঁদের জানান, ভারত যে কোনও ধরনের খারাপ পরিস্থিতির জন্য পুরোপুরি তৈরি। এরপর ডোভাল এবং এবং ধাসমানা সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে মধ্যস্থতাকারিদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। পাক সূত্রে খবর, গত ২৭ ফেব্রুয়ারির বিকেলে পাকিস্তানের ওপর হামলা করার জন্য পুরোপুরি তৈরি ছিল। ভারত পাকিস্তানের দিকে প্রায় ৯টি ক্ষেপণাস্ত্র তাক করে রেখেছিল। অন্যদিকে, পাকিস্তানও ভারতের দিকে প্রায় ১৩টি ক্ষেপণাস্ত্র তাক করে রেখে দিয়েছিল। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সেদিন রাতেই দুই দেশ একে ওপরের ওপর হামলা করে দিত। কিন্তু শেষ অবধি মধ্যস্থতাকারীদের আলোচনার পর এই হামলার সিদ্ধান্ত বাতিল করে দুই দেশই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here