মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রথমের সঙ্গে প্রাক্তন প্রথম এর দ্বৈরথ৷ রবিবার ওভালে৷ পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে নামছে দু’বারের চ্যাম্পিয়ন ভারত৷ এর আগে দুই দলের ১১ বার মুখোমুখি হয়েছিল৷ এরমধ্যে ক্যাঙারুর দেশ ৮ বার জিতেছিল৷ ভারত সেখানে মাত্র ৩ বার অজিদের হারাতে পেরেছিল৷ এরমধ্যে পর পর দুটি ম্যাচে জিতে রীতিমতো আত্ম বিশ্বাসে টগবগ করছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া৷ এবারেও তারা প্রতিযোগিতার অন্যতম ফেভারিট৷ ফিঞ্চের অস্ট্রেলিয়া অবশ্য ওয়া, পন্টিং এর অস্ট্রেলিয়ার মতো অপ্রতিরোধ্য নয়৷ এর আগে মাত্র ১৫ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারালেও অজিদের ব্যাটিং লাইনআপের প্রথম দিককার ব্যাটসম্যানদের একাই নড়িয়ে দিয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান মিডিয়াম পেসার আন্দ্রে রাসেল৷ তবে অভিজ্ঞতার অভাব ও আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের তরী তিরে এসে ডুবে যায়৷ অসি পেসার মাইকেল স্টার্ক অবশ্য ওয়েস্টইন্ডিজের বিরুদ্ধে ৫টি ইউকেট নিয়ে ইতিমধেই বিশ্ব রেকর্ড করে ফেলেছেন৷ তিনি সব থেকে কম ম্যাচে ১০০ ইউকেট নিয়ে পাক স্পিনার সাকলিন মুস্তাকের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন৷ বলা বাহুল্য তিনি বেশ ভাল ফর্মে আছেন৷

অন্যদিকে টিম ইন্ডয়া৷ ধারে ও ভারে বিরাট কোহলির ভারত অন্যতম সেরা৷ ধারাবাহিকতার দিক থেকে এই দল ভারতের সর্বকাসের সেরাদের মধ্যে অনায়াসেই জায়গা করে নেবে৷ অধিনায় বিরাট কোহলি এখনও পর্যন্ত জয়ের ধারাবাহিকতায় ভারতের অন্য অধিনায়কদের পেছনে ফেলে দিয়েছেন৷ অধিনায়ক তথা ব্যাটসম্যান হিসাবেও কোহলি সবচেয়ে বেশি সফল৷ রবিবার ম্যাচ জিততে গেল অনেকটাই কিং কোহলির দক্ষতার ওপর নির্ভর করছে৷ এবার বিলেতে বিশ্বকাপ অভিযানের প্রারম্ভিক ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে অবশ্য অধিনায়ক কোহলি রান পাননি৷ ভারতের নির্ভরযোগ্য ওপেনার রোহিত শর্মা অপরাজিত ১২২ করেন৷ তাঁর সৌজন্যে প্রোটিয়াসদের ৬ উইকেটে হেলায় হারিয়েছিল টিম ইন্ডিয়া৷ এছাডা় সুরুতেই ভারতীয় পেসার যশপ্রীত বুমরা ও স্পিনার যুযুবেন্দ্র চহাল যথেস্ট বাল বল করেছেন৷ তাঁদের এই সাফল্য অস্ট্রেলিয়া ম্যাচেও ধরে রাখতে হবে৷ মাইকেল স্টার্চ বনাম যশপ্রীত বুমরার লডা়ই দেখতে রবিবাসরীয় ওভালে ভিড় জমাবেন ভারতীয় সমর্থকরা৷

১৯৮৩ সালের ১১ জুন ভিভিয়ান রিচার্ডস শতরান করলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে গ্রুপ লিগের ম্যাচে হারাতে পেরেছিল কপিলের ভারত৷ সেইসময় সীমিত ওভারের ম্যাচ ৫০ এর জায়গায় ৬০ ওভার হত৷ মজার বিষয় সেই সময় এত রান উঠত না৷ ২০১৯ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের সঙ্গে ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপের প্রচুর মিল৷ দুটো বিশ্বকাপেই অংশগ্রহণকারী দলগুলি প্রত্যেকে প্রত্যেকের সঙ্গে খেলেছিল৷ ১৯৮৩-র ১১ জুন গ্রুপ লিগের ম্যাচে পর পর দুবার বিশ্বকাপ জয়ী ক্লাইভ লয়েডের ওয়েস্ট ইন্ডিজ কে গ্রুপ লিগে হারিয়ে দিয়েছিল কপিলের ভারত৷ সেবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে প্রথম বার কাপ জিতেছিল ভারত৷ ১৯৯৯ সালে ভারত ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলেছিল৷ দ্বিতীয় পর্যায়ে উঠলেও সেমিফাইনালে যেতে পারেনি৷ এবার কী হবে? তিরাশির লর্ডস কি ফিরিয়ে আনতে পারবে কোহলির টিম ইন্ডিয়া?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here