ভারতের অর্থনৈতিক স্বাস্থ্য ভালো নেই, দাবি নোবেল লরিয়েট অভিজিতের

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিত্ বন্দ্যোপাধ্যায় নোবেল জয়ের পরেই ভারতের অর্থনীতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন৷ এর বিশ্বব্যাঙ্কের রিপোর্টেও ভারতের অর্থনীতির বেহাল দশাকে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ এবার অভিজিত্ বলেন, ভারতের অর্থনৈতিক স্বাস্থ্য ভালো নেই৷ নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, সমস্যার কথা ভারত সরকার জানে৷ ভারতের মন্দা দূর করতে পদক্ষেপ করছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন৷ তবু পরিস্থিতি ঘুরে দাঁড়ায়নি৷

বিশ্বজুড়ে দারিদ্র মোচনের লক্ষ্যে তাঁর গবেষণার জন্য অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়কে এ বছর নোবেল পুরস্কার দেওয়া হবে বলে সোমবার ঘোষণা করেছে দ্য রয়্যাল সুইডিশ অ্যাকাডেমি। অভিজিৎবাবুর সঙ্গেই ওই পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন তাঁর স্ত্রী এস্থার ডাফলো এবং মাইকেল ক্রেমার। সুইডিশ অ্যাকাডেমির ওই ঘোষণার পরে সংবাদমাধ্যমের এক প্রশ্নের জবাবে অভিজিৎবাবু বলেন, ভারতের অর্থনীতির এখন কিছুটা নড়বড়ে অবস্থা। সরকার যেসব নীতি নির্ধারণ করছে তা খুবই সতর্কতার সঙ্গে আগে পাইলট করে দেখা উচিত।

অমর্ত্য সেনের পর আবারও অর্থনীতিতে নোবেল জয় বাঙালির। সোমবার অর্থনীতিতে নোবেলের জন্য ঘোষণা করা হল বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিত্ বন্দ্যোপাধ্যায়র নাম। বিশ্ব দারিদ্র দূরীকরণে পরীক্ষামূলক বিশ্লেষণের স্বীকৃতি হিসেবে নোবেল পেলেন বাঙালি অর্থনীতিবিদ। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে অধ্যাপনা করেন অভিজিত্ বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে, অর্থনীতির কৃতী ছাত্র অভিজিতে্র পথ চলা শুরু বাংলার মাটিতে। কলকাতায় সাউথ পয়েন্ট স্কুলে পড়াশোনা। অর্থনীতিতে নোবেল পাওয়া আরেক বাঙালি অমর্ত্য সেন যে কলেজে পড়াশোনা করেছেন, সেই প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকেই অর্থনীতিতে স্নাতক হন অভিজিত্। স্নাতকোত্তর করেন দিল্লির জহরলাল নেহেরু ইউনিভার্সিটি থেকে। অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর শেষ করেই পাড়ি দেন বিদেশে। ১৯৮৮ সালে হাভার্ড ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here