ডেস্ক: ফের মানবিকতার পরিচয় দেখাল ভারত। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে ১৬০ জন পাকিস্তানি তীর্থযাত্রীদের ভারতে আসার ভিসা দেওয়া হল। মঙ্গলবার আমির খসরুর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তাঁরা ভারতে আসছেন। ভারতীয় গুপ্তচর অভিযোগে পাকিস্তানের জেলে বন্দি কুলভূষণ যাদব। কুলভূষণকে নিয়ে দুই দেশের মধ্যে মামলার পর থেকে পাকিস্তানি ট্যুরিস্ট ভিসার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল ভারত সরকার। কিন্তু তীর্থযাত্রীদের জন্য এবার সেই নিয়ম ভাঙা হল। বিদেশমন্ত্রক সূত্রে খবর, তীর্থযাত্রীদের ইতিমধ্যেই ভিসা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। ২০১৫ সালে রাশিয়ায় নরেন্দ্র মোদী এবং তৎকালীন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মধ্যে দুই দেশের ধার্মিক মানুষরা যাতে ভিসা পায় তার জন্য দুই দেশের সম্মতিতে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছিল। এক্ষেত্রে সেটিই মেনে চলা হল।

এমনিতেই সারাবছর ধরে কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বিবাদ চলছে। সেই সঙ্গে পাকিস্তানের বারবার সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন এবং ভারতের পাল্টা জবাব নিয়ে উত্তেজনা তো লেগেই রয়েছে। তাই পাকিস্তানিদের এদেশে আসার উপর বরাবরই কড়া নজর থাকে ভারতের। এবছরের মার্চ মাসে আজমেরে খাওয়াজা মইনুদ্দিনের সৌধ দেখার জন্য অনুমতি চেয়েছিলেন প্রায় ৫০০ জন পাক নাগরিক। কিন্তু দুই দেশের কূটনৈতিক পরিস্থিতির কথা ভেবে ভারত সরকার তাঁদের ভিসা বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়। যার ফলে ভারতকে যথেষ্ট বিতর্কের মুখে পরতে হয়। কিন্তু এই ঘটনায় মনে করা হচ্ছে যে, ভারত দুই দেশের মধ্যে আর কোনও দ্বন্দ্ব না রেখে পাকিস্তানের দিকে সৌভাতৃত্বের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। কিছুদিন আগেই ভারত এবং পাকিস্তান দুই দেশই তাদের যে যার দেশের বন্দিদের একটি নামের তালিকা একে অপরকে পাঠায়। এতে ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ পাক বন্দিদের মুক্তি করার বিষয়ে ওপর সম্মতি জানান। যার ফলে গত সপ্তাহেই ৭ পাকিস্তানি বন্দিকে মুক্তি দিয়েছে ভারত। পাশাপাশি, পাকিস্তানের জেলে বন্দি অসুস্থ ভারতীয়দের চিকিৎসার জন্য ভারত সরকারের তরফ থেকে পাঠানো একটি মেডিক্যাল টিমকে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে ইসলামাবাদ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here