tripura bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পেশ হওয়ার পর থেকেই ক্ষোভে ফুটছে অসম। শুধু অসম বললে ভুল হবে, গোটা উত্তর-পূর্ব। বিজেপি সরকারকে ভরসা ক্ষমতা দেওয়ার পর তারা যে এভাবে এই বিল নিয়ে চলে আসবে, তা কল্পনার বাইরে ঠেকছে। ফলে অসমে বিক্ষোভের ঢেউ আছড়ে পড়েছে বিজেপি শাসিত আরেক রাজ্য ত্রিপুরায়। বাধ্য হয়ে পরিস্থিতি আয়ত্ত্বে রাখতে ইন্টারনেট ও মেসেজ পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিপ্লব দেব প্রশাসন। যা কার্যত কাশ্মীরের পরিস্থিতির সম্মুখীন করেছে ত্রিপুরাবাসীদের।

সূত্রের খবর, ক্যাবের বিরুদ্ধে বাড়তে থাকা ক্ষোভের জেরে ২৪ ঘণ্টার জন্য ইন্টারনেট ও এসএমএস পরিষেবা বন্ধ রাখতে হয়েছে ত্রিপুরাই। ক্যাব বিরোধী বেশ কয়েকটি সংগঠনের ডাকা ১২ ঘণ্টার বনধের পর থেকেই পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়েছে। বেশ কিছু জায়গায় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন বনধ সমর্থনকারীরা। তাদের বক্তব্য, উত্তর-পূর্বের সংস্কৃতি এবং অস্তিত্বকেই প্রশ্নের মুখে ফেলে দেবে এই বিল। তাই ত্রিপুরায় যাতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল লাগু না করা হয় সেই দাবি জানাচ্ছেন তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সরকারি আধিকারিক এএনআইকে জানান, ‘অনেকেই এই পরিস্থিতির ফায়দা তুলে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করছেন, গুজব রটানো হচ্ছে। সেই কারণে আমাদের সরকার ইন্টারনেট ব্যবস্থা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

গতকাল এই বিল লোকসভায় উত্থাপিত হওয়ার পরই ক্ষোভ মারাত্মক আকার ধারণ করেছিল অসমের রাজধানী গুয়াহাটিতে। বিশেষ করে গুয়াহাটির ছাত্রসংগঠন ও ছাত্র সমাজ এই বিলের বিরুদ্ধে। বিলটির প্রতিবাদে গতকাল এক সুবিশাল মশাল মিছিল বের করা হয়েছিল গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে। বাড়তে থাকা বিক্ষোভের জেরে বাতিল করতে হয়েছে প্রচুর ট্রেন। এই অবস্থায় বিলটি যদি রাজ্যসভাতেও পাশ হয়ে যায়, তবে চিন্তা আরও বাড়বে বিজেপির। পাশাপাশি যে বিপুল জনসমর্থন তাদের উত্তর-পূর্বে গত কয়েক বছরে তৈরি হয়েছিল, তাও একধাক্কায় অনেকটাই কমে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here