ডেস্ক: অস্ট্রেলিয়ার একটি থিঙ্কট্যাঙ্ক সিডনির ইনস্টিটিউট অব ইকোনোমিক্স অ্যান্ড পিস (আইআইপি) সম্প্রতি এক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলি কঠোর হাতে দমন করায় হিংসাত্মক অপরাধের মাত্রা অনেক হ্রাস পেয়েছে। ২০১৮ সালের গ্লোবাল পিস ইনডেক্সে ভারতের স্থান ১৬৩টি দেশের মধ্যে ১৩৭তম স্থানে। গত বছর (২০১৭ সালে) ভারতের স্থান ছিল ১৪১তম। হিংসা-অশান্তি-অরাজগকতার মত বিষয়গুলিকে অত্যন্ত কড়া সতর্কতায় একপ্রকার কঠোর হাতে নিয়ন্ত্রন করে নিজেকে ৪ ধাপ এগিয়ে নিয়ে গেছে ভারত। তবে কাশ্মীর বিষয়কে কেন্দ্র করে ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে এক চাপা অসন্তোষ বেশ উত্তেজনার সৃষ্টি করেছে। এর পাশাপাশি দেখা গিয়েছে কলম্বিয়া,চাদ,শ্রীলঙ্কা এবং উগান্ডার সঙ্গে ভারতের মৃত্যুর হার অনেক হ্রাস পেয়েছে। বিশ্বের সবথেকে শান্তিপূর্ন দেশ হিসাবে ২০০৮ সাল থেকে নিজেদের প্রথম স্থানে রেখে আসছে আইসল্যান্ড। নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রিয়া, পর্তুগাল ও ডেনমার্ক রয়েছে এর পরবর্তী সারিতেই। সিরিয়া এই গ্লোবাল পিস ইনডেক্সের সবথেকে পেছনের সারিতে আছে।

অর্থাৎ এটি হল সবথেকে অশান্তি দেশ। গত পাঁচ বছর ধরে এই স্থানেই রয়েছে এই দেশ। এর পূর্ববর্তী স্থানে আছে যথাক্রমে-আফগানিস্তান, দক্ষিণ সুদান, ইরাক এবং সোমালিয়া। বিশ্বশান্তি যে রিপোর্ট পেশ করেছে তাতে বলা হয়েছে-বিশ্বে অরাজগকতা-অশান্তি-হিংসা এত পরিমাণে বেড়ে গিয়েছে যে সেগুলি নিয়ন্ত্রনের জন্য বেশ কিছু পরিমাণ সম্পদ ব্যয় করা হয়েছে। শান্তিসূচক বা জিপিআই বিশ্বে শান্তির মাত্রা ০.২৭ শতাংশ কমে গিয়েছে।পর পর চার বছর যাবৎ এই মাত্রা হ্রাস পেয়েই চলেছে। মূলত যেসকল দেশের সঙ্গে তাঁদের প্রতিবেশী দেশের বিরোধ রয়েছে তাঁদের মধ্যেই অশান্তির মাত্রা বেশি। যেমন-মিশর, ভারত, ইরান, পাকিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়া ও সিরিয়া বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সিরিয়াতেই মৃত্যু সংখ্যা সর্বাধিক। অনেক দেশই তাঁদের অরাজকতা সমাধানের পথ এখনো বের করতে না পারায় সেই দেশগুলিতে ক্রমশ শান্তির মাত্রা হ্রাস পাচ্ছে। তবে আমাদের মাতৃভূমি ভারতবর্ষ সব হিংসা-অরাজগকতা-অসন্তোষ ভুলে গ্লোবাল পিস ইনডেক্সে খুব শীঘ্রই জগত সভায় শ্রেষ্ঠ আসন গ্রহণ করুক সেই দিনের অপেক্ষায় রইলাম আমরা সব ভারতবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here