ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে আধুনিকতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাশ্চাত্য সংস্কৃতির প্রভাব পড়েছে ভারতেও। বিয়ের সঙ্গে সঙ্গে ‘লিভ ইন’ সম্পর্কও তাই আকছার ঘটছে এই দেশে। আইনের চোখে এতকাল এ সম্পর্কের কোনও বৈধতা না থাকলেও এবার তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করল শীর্ষ আদালত। মঙ্গলবার এক মামলার পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে শীর্ষ আদালত জানতে চাইল দীর্ঘ যৌন সম্পর্ককে কি বৈবাহিক জীবন হিসাবে মান্যতা দেওয়া যায়?

জানা গিয়েছে, এদিন শীর্ষ আদালতে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা চলছিল। এক মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে এদিনের শুনানিতে ওই অভিযুক্তের আইনজীবী জানান, ‘সংশ্লিষ্ট মহিলার সঙ্গে তার দীর্ঘ যৌন সম্পর্ক ছিল। সেক্ষেত্রে এই সম্পর্কে তৈরি হওয়া সহবাসকে ধর্ষণ বলা যাবে না।’ একইসঙ্গে ওই মহিলাকে বিয়ে করতেও অস্বীকার করেন ওই ব্যক্তি। জার জেরেই, আদালত অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে প্রশ্ন তোলেন, ‘যেখানে এক ব্যক্তি সম্পর্কের খাতিরে দীর্ঘ সহবাসের জীবন যাপন করেন এক মহিলার সঙ্গে সেটাকে কোনও ভাবেই ধর্ষণ বলা যায় না। আবার বৈবাহিক সম্পর্ক হলে ওই মহিলার দ্বায়িত্ব নিতে হয় সম্পর্কে থাকা ব্যক্তিকে। তাহলে দীর্ঘ সহবাসের সম্পর্কে থাকা এই সম্পর্ককে বৈবাহিক সম্পর্ক হিসাবে ধরা যায় কি? অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে এমনই প্রশ্ন ছুড়ল আদালত।

এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে ১২ সেপ্টেম্বর। তার আগে অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে এই বিষয়টি নিয়ে চিন্তা ভাবনা করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। অ্যাটর্নি জেনারেলের রিপোর্টের ভিত্তিতে এই পর্যবেক্ষনের উপর শিলমোহর দেবে আদালত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here