kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফের সংবাদ শিরোনামে শোভন-বৈশাখী। তৃণমূল নেত্রীর গালভরা প্রশস্তি করে ফের খবরে চলে এসেছেন এই রাজনৈতিক জুটি। তাঁরা কি তবে শেষতক তৃণমূলেই ফিরছেন?  আপাতত কোটি টাকার এই প্রশ্নটাই ঘোরাফেরা করছে রাজনৈতিক মহলে।

তৃণমূল নেত্রীর সঙ্গে মতানৈক্যের জেরে ২০১৯ এর ১৪ই অগস্ট দিল্লিতে  সবান্ধবী গিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। একই দিনে গেরুয়া খাতায় নাম লেখান তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সেদিন ঘাসফুলের ঝান্ডা ছেড়ে হাতে গেরুয়া ঝান্ডা তুলে নিতে দিল্লি গিয়েছিলেন তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক দেবশ্রী রায়ও। মূলত শোভনের বাধায়ই  সে যাত্রায় গেরুয়া দলে ভিড়তে পারেননি দেবশ্রী।

নয়া দলে যোগ দেওয়ার পরে পরেই নানা কারণে বিজেপির সঙ্গে দূরত্ব বেড়েছে এই রাজনৈতিক জুটির। পরে ঘুঁচেছে ব্যাবধানও। ফের বিজেপিতে সক্রিয় হয়েছেন শোভন-বৈশাখী। টিকিট নিয়ে তীব্র মতানৈক্যের জেরে বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক আগে আগেই বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেন এই রাজনৈতিক জুটি। তার পর থেকে পুরো নির্বাচন পর্বটাই তাঁরা কার্যত ছিলেন অন্তরালেই।

২রা মে ফল প্রকাশের পর দেখা যায় বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল। তার পরের দিনই কার্যত মমতা প্রশস্তিতে মুখর হলেন এই রাজনৈতিক জুটি। এর পরেই ছড়ায় জল্পনা। তাহলে কি বৈশাখীকে সঙ্গে নিয়ে ফের ফেলে আসা সাবানেই গা ঘষবেন শোভন?

চলতি বছরই হতে পারে কলকাতা সহ রাজ্যের ১২২টি পুরসভার নির্বাচন। কলকাতার মেয়র হিসেবে যথেষ্ট সুনাম কুড়িয়েছিলেন শোভন। তাঁর সেই ইমেজকে কাজে লাগাতে পারেন তৃণমূল নেতৃ্ত্ব। সঙ্গে ফাউ বৈশাখীর ‘শোভন-সুন্দর’ ইমেজ। এই রাজনৈতিক জুটিকে কাজে লাগালে আক্ষরিক অর্থেই লাভ হবে ঘাসফুল শিবিরের। তবে পুরানো দলে ফিরলে রত্না কাঁটা কীভাবে সামলান শোভন, সেটাই দেখার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here