ডেস্ক: আপনি কী প্রোটেকটিং ইওর ইনফর্মেশন লিঙ্কের কোনও নোটিস পেয়েছেন? যদি আপনার ফেসবুকের তথ্যফাঁস হয়ে থাকে, তাহলে আপনি আজ না হয় কাল এ ধরনের নোটিস পাবেন৷ ওই নোটিসে লেখা থাকবে, কোন অ্যাপের সাহায্যে তথ্য শেয়ার করা হয়েছে৷ যদি কেউ অ্যাপ বন্ধ করতে চান, তাহলে করতে পারেন৷ চাইলে থার্ড পার্টি অ্যাকসেস বন্ধ করা যেতে পারে৷

সম্প্রতি সারা পৃথিবী জুড়ে ফেসবুকে তথ্য ফাঁস নিয়ে রীতিমতো তোলপাড় শুরু হয়৷ এই কেলেঙ্কারিতে কাঠগড়ায় কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা৷ ৮ কোটি সত্তর লক্ষ ফেসবুক ইউজারের তথ্য ফাঁস হওয়ার ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই রীতিমতো বিস্ফোরণ ঘটে৷ সবথেকে বেশি এর শিকার হয়েছেন আমেরিকার ইউজাররা৷ পাশাপাশি ইংল্যান্ড, ফিলিপাইন্স, ইন্দোনেশিয়ার লক্ষ লক্ষ ইউজার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন৷

এখনও পর্যন্ত দুশো কুড়ি কোটি ফেসবুক ইউজার এই নোটিস পেয়েছেন৷ ২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ভোটারদের প্রভাবিত করতে ফেসবুক থেকে তথ্য নিয়ে তা কাজে লাগানো হয়েছিল৷ সেই তথ্য ফাঁস হতেই মাঠে নামে জুকেরবার্গের ফেসবুক৷ সেখানে জুকেরবার্গ তাঁর ভুলের কথা স্বীকার করেন৷ আগামী দিনে যাতে এ ধরনের তথ্যফাঁসের ঘটনা না ঘটে, সে ব্যাপারে সতর্ক হবেন বলে জানান৷ দুদিন আগে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা আরেকটা সুযোগও প্রার্থনা করেন৷

কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারিতে ক্রিস্টোফার উইলি দাবি করেছিলেন, পাঁচ কোটি মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করা হয়েছে। ব্যবহারকারী ও তাদের বন্ধুদের থেকেও হাতানো হয়েছে তথ্য । পরে উইলিই জানান, এখন সেই সংখ্যা ৮.৭ কোটি পেরিয়ে গিয়েছে। তবে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার দাবি,তিন কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য তাদের কাছে ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here