Parul

মহানগর ডেস্ক: আজ ২১ জুলাই। তৃণমূলের শহীদ দিবস পালন করা হয় এই দিনটিতে। কিন্তু একটু অন্যভাবে সর্বভারতীয় স্তরে পৌঁছে গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দেশের ৬ টির বেশি রাজ্যে আজ শোনা গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাষণ। ১৯৯৩ সালে ২১ জুলাই কলকাতার রাজপথে ১৩ জন যুব কংগ্রেস কর্মীর মৃত্যু হয়েছিল পুলিশের গুলিতে। আর তারপর থেকেই প্রতি বছর এই দিনটিতে শহীদ দিবস পালন করে তৃণমূল।

ads

তৃণমূলের পাল্টা আজ ‘শহীদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস’ পালন করল বিজেপি। দিল্লিতে রাজঘাটে ধরনায় বসে বিজেপি। যেখানে নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এই কর্মসূচী পালন হয়েছে রাজ্যের ব্লক ও জেলা স্তরে। চলতি বছর বিধানসভা নির্বাচনের ভোট-পরবর্তী সন্ত্রাসের ছবি ফুটে উঠেছিল রাজ্যে। সেই উপলক্ষে গোটা শহর জুড়ে ভোট-পরবর্তী সন্ত্রাসের অভিযোগ এর পোস্টার দিয়েছে বিজেপি। সেই ধর্না সভা থেকেই তৃণমূলের ২১ জুলাই এর শহীদ দিবস নিয়ে তীব্র কটাক্ষ করেছে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এদিন তিনি জানিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শহীদ দিবস করবেন যুব কংগ্রেসের কর্মী দের মৃত্যুর প্রতিবাদে। অথচ আমাদের কর্মীদের খুন করা হচ্ছে বাংলায়। এই প্রথম শহীদ দিবস সর্বভারতীয় স্তরে করা হয়েছে। সর্বভারতীয় স্তরে বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই নিয়ে কটাক্ষ করেছেন দিলীপ ঘোষ। তিনি জানিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জাতীয় স্তরের নেতা হওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু তৃণমূল আগে যেসব রাজ্য শাখা খুলে ছিল সেগুলো তো গুটিয়ে গিয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছে,ন পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল আমাদের যে ১৭৫ জন কর্মীকে খুন করেছে আমরা তাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। এছাড়াও এদিন দিলীপ ঘোষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেন, আগে বাংলা সামলান, তারপর দেশ সামলাবেন। প্রধানমন্ত্রীর মতো হওয়ার স্বপ্ন দেখা ভালো। কিন্তু আগে তো ভালো মুখ্যমন্ত্রী হন।

সভা থেকে দিলীপ ঘোষ আরও জানিয়েছেন, ২০১৯ সালে সারা ভারতে গিয়ে সভা করলেন বর্তমান বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু বাংলার মানুষ বুঝিয়ে দিলেন আপনার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দরকার নেই। মুখ্যমন্ত্রী পর্যন্তই আপনি ঠিক রয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here