kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: দলের তরফে প্রার্থী তালিকা ঘোষণার আগেই হাওড়ার শিবপুর বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের বিদায়ী বিধায়ক জটু লাহিড়ীর সমর্থনে দেওয়াল লেখা শুরু হয়ে যায় কয়েকদিন আগে। লেখা হয়, ‘আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে শিবপুর কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী জটু লাহিড়ীকে ঘাসের ওপর জোড়াফুল চিহ্নে ভোট দিন।‘ কয়েকদিন আগে সাংবাদিক বৈঠকে দলের ঘোষণার আগেই আসন্ন বিধানসভায় প্রার্থী হিসাবে নিজের নাম ঘোষণা করে ফেলেন শিবপুরের বিদায়ী বিধায়ক জটু লাহিড়ী। সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি নিশ্চিত ভাবে জানি বিধায়ক হিসেবে আমি আবার আসব।‘

গতকাল প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে তৃণমূল। সেই তালিকায় দেখা গিয়েছে অন্তত ৬০ জন বর্তমান বিধায়ক বাদ পড়েছেন। তার মধ্যে বেশ কয়েকজন মন্ত্রীও আছেন। একাধিক নতুন মুখ আনা হয়েছে প্রার্থী তালিকায়। বয়সের কারণ দেখিয়ে বেশ কয়েকজনকে প্রার্থী তালিকায় জায়গা দেওয়া হয়নি। তাদের মধ্যে আছেন জটু লাহিড়ী। প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি। আজ তৃণমূলের বর্ষীয়ান এই রাজনীতিক টিকিট না পেয়ে তৃণমূল ছেড়ে দেন। তিনি বলেন, ‘ধিক্কারে দল ছাড়লাম। টিকিট না পেলেও জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত বিজেপিতেই থাকার সিদ্ধান্ত নিলাম।‘ আগামীকাল নরেন্দ্র মোদির ব্রিগেড সভাতেও যাওয়ার কথা ভাবছেন তিনি।

তৃণমূলের এই বর্ষীয়ান রাজনীতিক দল চালানোর ক্ষেত্রে পিকে-র হস্তক্ষেপ কখনওই মানতে পারেননি। একাধিকবার পিকে সম্পর্কে প্রকাশ্যে নিজের ক্ষোভ জানিয়েছেন। কয়েকদিন আগে সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেছিলেন, ‘জেলা নেতৃত্ব বা দল যা বলবে, তাই করব। আর কারও কথায় দলীয় কাজ করব না।‘ তাঁর এই কথার নিশানা ছিল ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর। এর আগে পিকে-র টিমের তরফে যা যা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তা কখনও মানেননি জটু লাহিড়ী। মনে করা হচ্ছে, এবার তিনি টিকিট না পাওয়ার পেছনে এইগুলিই অন্যতম কারণ। আর টিকিট না পেয়ে খোভে তিনি দল ছেড়ে দিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here