bengali news

বল্লান সেন: বাংলার আধ্যাত্মিক আন্দোলনে রামমোহন রায় (১৭৭২-১৮৩৩) প্রতিষ্ঠিত ব্রাহ্ম আন্দোলনের যেমণ জায়গা রয়েছে, তেমনই শ্রী চৈতন্যদেব (১৪৮৬-১৫৩৪) থেকে রামকৃষ্ণ (১৮৩৬-১৮৮৬) পর্যন্ত এক সরলরেখা টানা যেতে পারে। যার ফলস্বরূপ আমরা বিবেকানন্দ (১৮৬৩-১৯০২) কে পেয়েছি। আর চৈতন্য পরবর্তী সময়ে নিতাই কে পাই।

মনে রাখতে হবে শ্রীচৈতন্য নিজেকে কোনওদিনও ধর্মপ্রচারক হিসাবে দাঁড় করাননি আবার রামকৃষ্ণের মধ্যে বাস্তবানুভূতি ও দার্শনিক বোধ খুব সহজ, সরল ও সাবলীল ছন্দে এসেছে। তিনি গূঢ়তত্ত্ব ও তথ্যকে একদম সোজা রাস্তায় ফেলে দিয়েছেন। এইসব মানুষজনেরা মূলত বেশ রসিক হন। ঠিক যেমন আমরা দেখেছি শরৎ পন্ডিত (১৮৮২-১৯৬৯) ‘দাদাঠাকুর’-এর ক্ষেত্রে। এরা কিছু বক্তব্য এমনভাবে বলতেন যে সাধারণ মানুষ খুশি না হয়ে পারত না।

খাবার প্রতি খুব যে রামকৃষ্ণের বিরাট লোভ ছিল তা ঠিক নয়। তবে জিলিপি খেতে ভীষণ ভালোবাসতেন। একবার রামমোহন পরবর্তী ব্রাহ্ম আন্দোলনের নেতা কেশবচন্দ্র সেন (১৮৩৮-১৮৮৬) এর বাড়িতে কোনও এক অনুষ্ঠানে রামকৃষ্ণের বাড়িতে নেমন্ত্রন হয়েছে। মনে রাখতে হবে নেমন্ত্রন পেলে রামকৃষ্ণ দক্ষিণেশ্বর থেকে বেশ তাড়াতাড়ি ঘোড়ার গাড়ি করে নিমন্ত্রন বাড়িতে পৌছতেন। এক্ষেত্রে অন্যথা হল না। খাওয়া শেষ করে রামকৃষ্ণ বললেন, ”আমার গলা পর্যন্ত পূর্ণ আর একটা সরষে পরিমাণ খাদ্যের স্থান নেই তবে জিলিপি হলে পথ হতে পারে।” এই কথা শুনে একজন জিজ্ঞাসা করলেন এটা কেমন করে হবে- সরষের পথ হচ্ছে না তবে জিলিপি। রামকৃষ্ণ হেসে বললেন, ”দেখ দেখ কান্ডি- এটাও বুঝতে পারেনি, যেমণ রাস্তায় খুব গাড়ি-ঘোড়ার ভিড় থাকলে লাটসাহেবের গাড়ি এলে অন্য গাড়ি সরে গিয়ে স্থান করে দেয়, তেমনি জিলিপি খাবারের পথ হবে। অন্য খাদ্যদ্রব্য জিলিপিকে সম্মান করে পথ ছেড়ে দেবে।” বলে তিনি হাসতে লাগলেন।

অধর সেন (১৮৫৫-১৮৮৫) তখন বেনেটোলাতে থাকতেন। সবে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট হয়েছেন। সেন মহাশয় রামকৃষ্ণকে তাঁর বাড়িতে আমন্ত্রন জানিয়েছেন। সেখানে সেদিন উপস্থিত হয়েছেন বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় (১৮৩৮-১৮৯৪)। অধরবাবু বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যাটয়কে রামকৃষ্ণের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন, ইনি অনেক বই লিখেছেন বিখ্যাত সাহিত্যিক আপনাকে দর্শন করতে এসেছেন। রামকৃষ্ণ হেসে বললেন, ‘বঙ্কিম, কার হাতে পরে বাঁকলে গা? বঙ্কিমও কম যান না, হেসে উত্তর দিলেন, ”হাতে নয়, বেঁকেচি ইংরেজের বুটের ঠোক্করে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here